এর সর্বশেষ সংবাদ
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><p class="MsoNormal" style="margin: 0px; padding: 0px; box-sizing: border-box; font-size: 17px; text-align: justify; background-color: rgb(255, 255, 255);"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/03/1551815766_th.jpg" style="font-size: 16px; margin-right: 7px;" alt="" align="left" border="0px"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; text-align: start;">স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে হোষ্টিং হেল্প ২৪ সীমিত সময়ের জন্য নির্দিষ্ট এক্সটেশানের ডোমেইন ও ৫০০ এমবি ইউএসএ সিকিউর সার্ভার and nbsp;হোষ্টিং দিচ্ছে মাত্র ৫০০ টাকায়!</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; text-align: start;"><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; text-align: start;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; text-align: start;">ডোমেইনের সম্পূর্ণ কন্টোল প্যানেল দেওয়া হবে এবং কাষ্টমারের নামে রেজিষ্ট্রেশান করা হবে। যার ফলে ভবিষ্যতে যে কোন কোম্পানী থেকে ডোমেইন রিনিউ করা সম্ভব হবে।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; text-align: start;"><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; text-align: start;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; text-align: start;">সি প্যানেল প্ল্যাটফর্মের হোষ্টিং সার্ভারে ওয়ান ক্লিক ইন্সষ্টলেশানের মাধ্যমে ওয়ার্ড প্রেস. জুমলাসহ বিভিন্ন সিএমএস and nbsp;এক ক্লিকের মাধ্যমে ইনষ্টল করা যাবে।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; text-align: start;"><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; text-align: start;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; text-align: start;">শুধুমাত্র নির্দিষ্ট এক্সটেনশানের নতুন ডোমেইন রেজিষ্ট্রেশানের ক্ষেত্রে এই অফার প্রযোজ্য হবে। ডোমেইন এক্সটেশান জানতে ইমেইল করুণ: info@hostinghelp24.com ঠিকানায় এবং জানতে কল করুণ: ০১৯১৫৭৮৪২৬৪।</span></p> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi;"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1546585633_th.jpg" alt="" align="left" border="0px"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">সকালে সংসদ সচিবালয়ে শপথ নিলেন নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য (এমপি) হিসেবে। সে পাঠ চুকিয়ে দুপুরেই আবার চলে এলেন মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। নিজের চেনা জগতে, আপন ঠিকানায়। অনুশীলন করলেন দলের সাথে, কথা হলো কোচ টম মুডির সাথেও।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">ক্রিকেটের পাশাপাশি রাজনীতির মাঠে নাম লেখানোর পর থেকেই প্রশ্ন উঠে গিয়েছিল দুটিই একসঙ্গে সামাল দিতে পারবেন তো মাশরাফি? নাকি ভিন্ন ঘরানার দুই মাঠের লড়াইয়ে হেরে যেতে হবে তাকে? অন্তত প্রথমদিন এ প্রশ্নের উত্তরটা বেশ দারুণভাবেই দিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ওয়ানডে অধিনায়ক এবং নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজা।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">সাংসদ হিসেবে নিজের দায়িত্ব পালন করেই ছুটে এসেছেন ক্রিকেট মাঠে। একদম ঠিক আগের মতো করেই। পরিবর্তন হয়নি কিছুই। মাশরাফির এমন দায়িত্ববোধজ্ঞানে খুশি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে তার দল রংপুর রাইডার্সের কোচ টম মুডি। এ অসি কোচের বিশ্বাস ‘এমপি’ হিসেবে নির্বাচিত হলেও ক্রিকেটের আবেদনটা ঠিক আগের মতোই হয়েছে মাশরাফির কাছে।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">বৃহস্পতিবার রংপুরের প্রথম দিনের অনুশীলনে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে নিজের শিষ্যকে অভিনন্দন জানান মুডি। পাশাপাশি এও জানিয়ে দেন জীবনের নতুন অধ্যায়ে এমপি হিসেবে নির্বাচিত হলেও ক্রিকেটের মানুষ মাশরাফি।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">মুডি বলেন, ‘সংসদ সদস্য? সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো, সে ক্রিকেট দলেরও সদস্য। অবশ্যই গত কয়েক সপ্তাহ ছিল ওর জীবনের রোমাঞ্চকর এক অধ্যায়। এই অর্জনের জন্য আমরা সবাই ওকে অভিনন্দন জানাই। তবে আমি জানি, মাশরাফি খেলা শুরু হতেই ক্রিকেটে নিজেকে উজার করে দিতে উদগ্রীব হয়ে থাকবে।’</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">এসময় নিজেদের অনুশীলনের ব্যাপারে জিজ্ঞেস করা হলে এ অসি কোচ বলেন, ‘অনুশীলনটা আসলে সবার জন্যই সমান। আমরা পরিস্থিতিটা বুঝি যে কোনো কারণে এমন তাড়াহুড়োর মধ্য দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করতে হচ্ছে। সব দলের জন্যই এটা সমান। শুরুর দিকেই আমাদের টানা খেলা রয়েছে। আশা করছি আমরা শুরুতেই কিছু জয় দিয়ে ভালো সূচনা করতে পারবো।’</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">বিপিএলের গত আসরেই প্রথমবারের মতো শিরোপা জিতেছে রংপুর। এবারও কি হবে তেমন কিছু? এমন প্রশ্নের জবাবে বেশ সতর্ক রংপুর রাইডার্সের কোচ। এখনই শিরোপা জয়ের আলোচনা না করে সব দলের প্রতি সমান গুরুত্ব দিয়ে নিজেদের সেরা খেলার দিকেই লক্ষ্য তার।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">মুডি বলেন, ‘আমরা সবাই জানি টুর্নামেন্টটা খুব কঠিন। এখানের সব দলই ভারসাম্যপূর্ণ। গত আসরে আমরা যেটা করেছিলাম, নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজি হিসেবে সেটা আমাদের জন্য দুর্দান্ত ছিলো। আমরা জানি যে সামনের দিনগুলোতে আমাদের কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। হুট করেই আমরা জয় পেয়ে যাবো না। এটা দীর্ঘ প্রক্রিয়ার ব্যাপার।’</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">এছাড়াও গত আসরের শিরোপা জয় নিয়ে খুব একটা মাতামাতি করতে রাজি নন আপাদমস্তক পেশাদার এ কোচ। তার মতে গত আসরেরটা গত আসরেই শেষ। এবার নতুন আসরে নতুন করে এগুতে হবে শিরোপা জয়ের লক্ষ্যে।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">তিনি বলেন, ‘আমাদের ঝুলিতে একটি শিরোপা রয়েছে। কিন্তু এটা এ বছরে কোনো কাজেরই নয় বলা যায়। আমরা জানি সামনের দিনগুলোতে আমাদের অনেক কাজ করতে হবে। আমাদের একটা শিরোপা রয়েছে যেটা অনেক দলই পায়নি, কিন্তু এটা এখন অর্থহীন। এটা হয়তো আমাদের সুখস্মৃতি জোগাবে। কিন্তু দল হিসেবে আমাদের সামনের দিকে তাকাতে হবে, যাতে করে এবারের টুর্নামেন্টটাও সফলভাবেই শেষ করতে পারি।’</span></body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1546585031_th.jpg" alt="" align="left" border="0px"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, বর্তমান প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম আর নেই (ইন্না লিল্লাহি...রাজিউন)। থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বৃহস্পতিবার রাতে এই খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। তার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">২০১৭ সালের ২৪ অক্টোবর সৈয়দ আশরাফুলের স্ত্রী মারা যাওয়ার পর থেকেই তিনি প্রায় অসুস্থ হয়ে পড়েন। আশরাফুল ইসলাম ফুসফুসের ক্যান্সারে ভুগছিলেন। অসুস্থতার কারণে তিনি গত বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর সংসদ থেকে ছুটি নেন। এ অবস্থাতেই একাদশ সংসদ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ-১ আসনে নৌকা প্রতীকে জয়ী হন সৈয়দ আশরাফ।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">একাদশ জাতীয় সংসদের নবনির্বাচিত এমপিদের মধ্যে ২৮৯ জন শপথ নিয়েছেন বৃহস্পতিবার। অসুস্থতার কারণে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এদিন শপথ নিতে পারেননি। তিনি সুস্থ হয়ে দেশে ফেরার পর তার শপথ নেয়ার কথা ছিল।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">১৯৫২ সালের ১ জানুয়ারি ময়মনসিংহে জন্মগ্রহণ করেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। দশম সংসদের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী ছিলেন তিনি। এর আগে তিনি স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছিলেন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">তার বাবা ছিলেন বাংলাদেশের মুজিবনগর অস্থায়ী সরকারের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম। আশরাফুল ইসলাম ৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার যুদ্ধে মুক্তি বাহিনীর একজন সদস্য ছিলেন। তিনি ছাত্র জীবন থেকেই রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। তিনি বৃহত্তর ময়মনসিংহের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং কেন্দ্রীয় সহ-প্রচার সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। যখন আব্দুল জলিল গ্রেফতার হন, তখন সৈয়দ আশরাফুল আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন এবং পরবর্তীতে ২০০৯ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে অন্য তিন জাতীয় নেতার সঙ্গে আশরাফুলের বাবা সৈয়দ নজরুল ইসলামকে হত্যা করা হয়েছিল। বাবার মৃত্যুর পর সৈয়দ আশরাফুল যুক্তরাজ্যে চলে যান। লন্ডনের হ্যামলেট টাওয়ারে বসবাস শুরু করেন। লন্ডনে বসবাসকালে তিনি বাংলা কমিউনিটির বিভিন্ন কার্যক্রমে জড়িত ছিলেন। সেসময় তিনি লন্ডনে বাংলাদেশ যুব লীগের সদস্য ছিলেন। আশরাফুল ইসলাম ফেডারেশন অব বাংলাদেশি ইয়ুথ অর্গানাইজেশনের (এফবিওয়াইইউ) শিক্ষা সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">১৯৯৬ সালে দেশে ফিরে আসেন তিনি। ১৯৯৬ সালের জুনে ৭ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা নিয়ে গঠিত কিশোরগঞ্জ-১ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সে সময় বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন তিনি। ২০০১ সালে পুনরায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি। ২০০১ থেকে ২০০৫ পর্যন্ত তিনি পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">২০০৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে তিনি পুনরায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং ২০০৯ সালের জানুয়ারিতে মন্ত্রিসভা গঠিত হলে তিনি স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পুনরায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং পুনরায় স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। ২০১৫ সালের ৯ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে দফতরবিহীন মন্ত্রী করেন। এক মাস এক সপ্তাহ দফতরবিহীন মন্ত্রী থাকার পর ১৬ জুলাই প্রধানমন্ত্রী নিজের অধীনে রাখা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেন তাকে।</span> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1546584680_th.jpg" alt="" align="left" border="0px" style="margin-right: 7px;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট আল মিলারের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন বিএনপি নেতারা। শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতের বাসায় এ বৈঠক শুরু হয়েছে।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">বৈঠকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল উপস্থিত রয়েছেন। বৈঠকে সম্প্রতি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের নানা অনিয়ম নিয়ে কথা বলবেন বলে জানা গেছে।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">বিএনপির প্রতিনিধি দলে অন্য দুইজন হলেন- দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী এবং নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">গত ৩০ ডিসেম্বর (রোববার) বাংলাদেশের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা। ভোটগ্রহণের পর গতকাল (বৃহস্পতিবার) শপথগ্রহণ করেছেন নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যরা।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">তবে নির্বাচনে ভোট কারচুপি ও অনিয়মের অভিযোগ তুলে নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছে ধানের শীষের প্রার্থীরা। এছাড়া জাতীয় ঐক্যফ্রান্টের বিজয়ী প্রার্থীরা শপথগ্রহণ করেননি।</span> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style=""><p class="MsoNormal" style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px;"><span style="font-family: " nirmala="" ui",="" sans-serif;"="">বিডিহটনিউজ;<o:p></o:p></span><span style="font-family: " nirmala="" ui",="" sans-serif;"="">ঢাকা:</span></p> <p class="MsoNormal" style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px;"><span style="font-family:" nirmala="" ui","sans-serif""=""><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1546582339_th.JPG" alt="" align="left" border="0px" style="margin-right: 7px;">রাজধানীর পল্লবীতে ইএএস ফাউন্ডেশন (ইদ্রিস আলী শাকিরুননেসা ফাউন্ডেশন)- এর উদ্দ্যোগে দুস্থ্য and nbsp;প্রতিবন্ধীদের মাঝে কম্বল বিতরন করা হয়। <o:p></o:p></span></p> <p class="MsoNormal" style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px;"><span style="font-family:" nirmala="" ui","sans-serif""="">আজ শুক্রবার সকাল ১০টায় পল্লবীস্থ ইএএস ফাউন্ডেশন (ইদ্রিস আলী শাকিরুননেসা ফাউন্ডেশন)- এর ঢাকাস্থ কার্যালয়ে ফাউন্ডেশনের এর উদ্দ্যোগে দুস্থ্য প্রতিবন্ধিদের মাঝে কম্বল বিতরন করা হয়।<o:p></o:p></span><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1546583804_th.JPG" alt="" align="right" border="0px" style="margin-right: 7px;"></p> <p class="MsoNormal" style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px;"><span style="font-family:" nirmala="" ui","sans-serif""="">কম্বল বিতরন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন, ফাউন্ডেশনের নির্বাহী প্রধান আবু তাহের মো: শামসুজ্জামান। বিশেষ অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ গ্রাম উন্নয়ন পরিষদের সভপতি হুমায়ন কবির, রোখসানা আফরোজ।<o:p></o:p></span></p> <p class="MsoNormal" style=""><span style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px;" nirmala="" ui","sans-serif""="">ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী আবু তাহের মো: শামসুজ্জামান বলেন, আমরা সবাই যদি আমাদের সাধ্য অনুযায়ী and nbsp;</span><span style="font-family: SolaimanLipi;">প্রতিবন্ধীদের and nbsp;সহযোগীতা করি তাহলে আমাদের এই দেশ সত্যিকারের সোনার বাংলাদেশ হবে। প্রতিবন্ধিরাও এ সমাজে তাদের যোগ্যতার প্রমান রাখতে পারবে।</span></p> <p class="MsoNormal" style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px;"><span style="font-family:" nirmala="" ui","sans-serif""=""><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1546583835_th.JPG" alt="" align="left" border="0px" style="margin-right: 7px;">অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা সাংবাদিক আবদুল্লাহ্ আল মাসুম, সাংবাদিক সাজিদুর রহমান সজিব, মাসুদ রানা, রেশমা আক্তার প্রমুখ।<o:p></o:p></span></p> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1544959555_th.jpg" alt="" align="left" border="0px"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">প্রতিবারের মতো এবারও মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য উপহার হিসেবে ফুল, ফল ও মিষ্টি পাঠিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">রোববার (১৬ ডিসেম্বর) প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে প্রটোকল অফিসার খুরশীদ আলমসহ কয়েকজন কর্মকর্তা সকাল সাড়ে ১০টার দিকে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের এসব শুভেচ্ছা উপহার পৌঁছে দেন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">খুরশীদ আলম জানান, রাজধানীর কলেজ গেটে মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ার-১ এ গিয়ে তারা প্রধানমন্ত্রীর উপহার মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে তুলে দেন। এ সময় অনেক যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা সেখানে উপস্থিত ছিলেন। উপহার পেয়ে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধারা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">প্রসঙ্গত, প্রতি বছর বিজয় দিবসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের ফুল, ফল ও মিষ্টি পাঠিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়।</span></body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1544959313_th.jpg" alt="" align="left" border="0px"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">রাজধানীর মিরপুর থানার নাশকতার এক মামলায় ছাত্রদলের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মামুনুর রশীদ মামুনকে এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">শনিবার তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর মিরপুর থানার নাশকতার এ মামলায় সুষ্ঠু তদন্তের জন্য সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালত একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">এর আগে শুক্রবার রাতে রাজধানীর মিরপুর থেকে ছাত্রদলের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মামুনুর রশীদ মামুনকে গ্রেফতার করেছে মিরপুর থানা পুলিশ।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">ছাত্রদলের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মামুন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নোয়াখালী-১ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন।</span> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1544959138_th.jpg" alt="" align="left" border="0px"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">মার্কিন নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ইরান নিজস্ব নীতিতে অটল থাকবে বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাওয়াদ জারিফ। শনিবার কাতারের রাজধানী দোহায় অনুষ্ঠিত একটি আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা সম্মেলনে একথা জানান তিনি।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাওয়াদ জারিফ বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশকে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা থেকে বাঁচার উপায় সম্পর্কে শিক্ষা দেবে তেহরান। ‘এটা স্পষ্ট যে, মার্কিন নিষেধাজ্ঞার কারণে আমরা চাপের মুখে আছি। কিন্তু এই চাপের কারণে আমরা কি আমাদের নীতিতে পরিবর্তন আনব? আমি নিশ্চয়তা দিচ্ছি, সে দিন কখনোই আসবে না।’</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">তিনি আরও বলেন, ‘এমন কোনো শিল্প যদি থেকে থাকে যার ওপর ইরান পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেছে এবং সেটা অন্যকে শিক্ষা দিতে পারে তা হচ্ছে নিষেধাজ্ঞাকে পাশ কাটিয়ে কীভাবে স্বাভাবিক জীবনযাপন অব্যাহত রাখা যায়।’ পারমাণবিক চুক্তি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ইরানের স্বার্থ রক্ষিত হলে এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন নিজের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করলে তার দেশ এই চুক্তিতে অটল থাকবে।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনার সম্ভাবনা পুরোপুরি নাকচ করে দিয়ে তিনি বলেন, যে দেশটি ইরানের জন্য ১২টি পূর্বশর্ত আরোপ করে সে দেশের সঙ্গে কোনো অবস্থাতেই আলোচনায় বসবে না তেহরান। নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ইরান বিশ্বের অন্যান্য রাষ্ট্রের সঙ্গে যোগাযোগ ও তেল রপ্তানি চালিয়ে যাবে আর যারা ইরানের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছে তারাই পরাজিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">ইরানের বিরুদ্ধে মধ্যপ্রাচ্যে সামরিক হস্তক্ষেপ করার যে অভিযোগ যুক্তরাষ্ট্র তুলছে তা নাকচ করে দিয়ে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রই বরং সাত সমুদ্রের ওপার থেকে এসে মধ্যপ্রাচ্যে সামরিক হস্তক্ষেপ করছে। অন্যদিকে ইরান সিরিয়ায় সে দেশের সরকারের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে সামরিক উপদেষ্টা পাঠিয়েছে। দামেস্ক সরকার অনুরোধ করলেই ইরান সিরিয়া থেকে সামরিক উপদেষ্টা প্রত্যাহার করবে বলেও জানান তিনি।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">সূত্র : পার্স টুডে</span> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1544958925_th.jpg" alt="" align="left" border="0px"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সদ্য সমাপ্ত ওয়ানডে সিরিজে দুর্দান্ত বোলিং করেছেন মোস্তাফিজুর রহমান। তিন ম্যাচে মাত্র ৪.৩৬ ইকোনমিতে নিয়েছেন ৫টি উইকেট। বোলিংয়ে ছিলো অসাধারণ নিয়ন্ত্রণ ও ভ্যারিয়েশন। and nbsp;</span><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">এমন পারফরম্যান্সের পুরষ্কারটা র‍্যাংকিংয়ে পাবেন তা অনুমেয়ই ছিলো। যা সত্যি হয়ে দেখা দিয়েছে আইসিসির সদ্য প্রকাশিত বোলিং র‍্যাংকিংয়ে। যেখানে প্রথমবারের মতো সেরা পাঁচে ঢুকে গিয়েছেন বাঁহাতি মোস্তাফিজ।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">ক্যারিয়ার and nbsp;</span><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">সর্বোচ্চ ৬৯৫ র‍্যাংকিং নিয়ে মোস্তাফিজের বর্তমান অবস্থান ঠিক পাঁচ। সি</span><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">রিজে সর্বোচ্চ ৬টি করে উইকেট নেয়া মেহেদি হাসান মিরাজ এবং মাশরাফি বিন মর্তুজাও এগিয়েছেন র‍্যাংকিংয়ে। ১৯ ধাপ এগিয়ে ২৮ নম্বরে উঠে এসেছেন মিরাজ। ১০ ধাপ এগিয়ে মাশরাফির বর্তমান অবস্থান ২৩।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">বাংলাদেশের জন্য সুখবর রয়েছে অলরাউন্ডার র‍্যাংকিংয়েও। আফগান লেগস্পিনার রশিদ খানের কাছে শীর্ষত্ব হারানো সাকিব নিজের মুকুট ফিরে পাওয়ার খুব কাছে চলে গিয়েছেন। রশিদের (৩৫৩) সাথে সাকিবের (৩৫২) বর্তমান রেটিংয়ের পার্থক্য মাত্র ১। and nbsp;</span><div><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">এছাড়া অলরাউন্ডারদের র‍্যাংকিংয়ে ৬ ধাপ এগিয়ে ৩২ নম্বরে উঠে এসেছেন মোস্তাফিজ, ডানহাতি অফস্পিনার মেহেদি মিরাজ এদিকেও এগিয়েছেন ১৯ ধাপ। তার বর্তমান অবস্থান ৩৮তম and nbsp;</span><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">আর ব্যাটসম্যানদের মধ্যে ক্যারিয়ার সেরা ৭১২ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে ১৫ নম্বরে অবস্থান করছেন মুশফিকুর রহিম। এছাড়া ১০ ধাপ এগিয়ে সৌম্য সরকার ৪২ এবং ৪ ধাপ এগিয়ে ৯৮ নম্বরে এসেছেন লিটন দাস।</span> </div></body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1544958457_th.jpg" alt="" align="left" border="0px" style="margin-right: 7px;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">কিংবদন্তি চলচ্চিত্র নির্মাতা আমজাদ হোসেন গত শুক্রবার বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টা ৫৭ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে মত্যৃু হয় তার। and nbsp;</span><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">তাকে হারিয়ে শোকে কাতর বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গন। সবাই অপেক্ষায় তাকে শেষবারের মতো দেখবেন বলে।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">বরেণ্য এই নির্মাতার মরদেহ দেশে আনা প্রস্তুতি চলছে। আগামী সোমবার মরদেহ দেশে আনা হবে বলে জানান আমজাদ হোসেনের বড় ছেলে সাজ্জাদ হোসেন দোদুল।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">তিনি বলেন, ‘কিছু কাগজপত্রের ঝামেলা এখনো শেষ হয়নি। সেগুলো সম্পন্ন করার চেষ্টা চলছে। তাছাড়াও ব্যাংককে রোববার হলিডে এবং বাংলাদেশে বিজয় দিবসের ছুটি। তাই মরদেহ আনতে বিলম্ব হচ্ছে। আশা করছি সোমবারের মধ্যেই বাবাকে নিয়ে আসতে পারবো।’</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">প্রসঙ্গত, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রখ্যাত এই চলচ্চিত্রকারকে ২৭ নভেম্বর এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে। তিনি প্রখ্যাত নিউরোসার্জন টিরা ট্যাংভিরিয়াপাইবুনের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন ছিলেন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">সেখানেই চিকিৎসারত অবস্থায় মারা যান ৭৬ বছর বয়সী এই চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব। and nbsp;</span> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1544958106_th.jpg" alt="" align="left" border="0px"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">অাসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১০ অাসনে অাওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস অাজ (রোববার) গ্রিন রোড-কলাবাগান এলাকায় গণসংযোগ করেছেন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">রাস্তার ধারে প্রতিটি দোকান ও অফিসে প্রবেশ করে তিনি ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করেন। এ সময় তিনি ভোটারদের হাতে নৌকা প্রতীকের স্টিকার ও গত ১০ বছরে তার এলাকার উন্নয়ন-সংক্রান্ত লিফলেট ধরিয়ে দেন। গ্রিন রোড স্টাফ কোয়ার্টার ও কলাবাগানের বিভিন্ন বাসায় গিয়ে তিনি ভোট প্রার্থনা করেন। and nbsp;</span><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">গণসংযোগকালে দেখা গেছে, গ্রিন রোড স্টাফ কোয়ার্টারের মানুষ অনেকেই ভবন থেকে নিচে নেমে অাসেন। তারা এমপি তাপসের সঙ্গে করমর্দন করেন। বৃদ্ধ মহিলারা তাপসের মাথায় হাত রেখে দোয়া করেন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">দুপুর ১২টা থেকে এ গণসংযোগ শুরু হয়। দুপুরে বিরতি দিয়ে রাত পর্যন্ত চলবে বলে ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপসের পিএস তারেক জানান। and nbsp;</span><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">এদিকে ঢাকা-১০ অাসনে বিএনপি প্রার্থী অাবদুল মান্নানের কোনো প্রচার-প্রচারণা দেখা যায়নি। এমনকি ধানমন্ডি, জিগাতলা, গ্রিন রোড ও কলাবাগান ঘুরে ধানের শীষের কোনো পোস্টারও দেখতে পাওয়া যায়নি।</span><br></body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1544957802_th.jpg" alt="" align="left" border="0px"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">ঢাকা-৬ আসনে মহাজোটের প্রার্থী কাজী ফিরোজ রশিদ বলেছেন, ‘বর্তমান মহাজোট সরকার দেশের যে উন্নয়ন করেছে এবং অগ্রগতির দিকে নিয়ে গিয়েছে তাতে সুষ্ঠু ভোট হলে দেশবাসী পুনরায় মহাজোটকে ক্ষমতায় বসাবে। মনে রাখতে হবে, মহাজোটের পরাজয় মানে উন্নয়ন ও অগ্রগতির পরাজয়। দেশবিবোধী শক্তি চায় দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হোক। তাই মহাজোট ও নির্বাচন নিয়ে নানা কুৎসা রটাচ্ছে।’</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">কাজী ফিরোজ রোববার দিনব্যাপী নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিয়ে বিভন্ন পথসভায় এসব কথা বলেন। সকালে তিনি পুরান ঢাকার পাতলাখান লেনে নিজের জন্য লাঙলে ভোট চান। এ সময় স্থানীয় যুবলীগ ও সোহরাওয়ার্দী কলেজ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এরপর সেন্ট্রাল গার্লস স্কুলে নারী সমাবেশে বক্তব্য দেন। পরে লক্ষ্মীবাজার ও ধোলাইখালে লাঙলের পক্ষে প্রচার মিছিলেরর নেতৃত্ব দেন তিনি। বিকেলে পুরান ঢাকার ভিক্টোরিয়া পার্কে যুবলীগ আয়োজিত সমাবেশে বক্তব্য দেন। এ সময় আরও বক্তব্য দেন যুবলীগের ঢাকা মহানগর সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট, সাংগঠনিক সম্পাদক গাজী সারোয়ার হোসেন বাবু, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হেদায়াতুল ইসলাম স্বপন, আইয়ুব আলী খান, স্থানীয় কাউন্সিলর আরিফ হোসেন ছোটন, জাপা নেতা হাজী ফারুক, তরুন বসু, আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ।</span> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1544957675_th.jpg" alt="" align="left" border="0px" style="margin-right: 7px;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">নোয়াখালী-২ আসন সেনবাগে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও ধানের শীষের প্রার্থী জয়নুল আবদিন ফারুকের গাড়িবহরে হামলা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় তিনি রক্ষা পেলেও ৫টি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। এতে উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ আহত হয়েছেন ৫ জন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">রোববার সকালে এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার সময় দুর্বুত্তরা উপজেলা বিএনপি অফিসও ভাঙচুর করে।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">জয়নুল আবদিন ফারুক জানান, সকাল পৌনে ৯টার সময় বিজয় দিবস উপলক্ষে প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে তিনি উপজেলা সদরে ফুল দিতে যান। এ সময় সেনবাগ বাজারের সন্নিকটে রাস্তার উপর তাদের গাড়িবহরে এ হামলা চালানো হয়। and nbsp;</span><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">হামলায় উপজেলা চেয়ারম্যান বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহীদ উল্লাহ, পৌর বিএনপির সভাপতি জহিরুল ইসলাম লিটন, সেনবাগ উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি শাহাবুদ্দিন রাসেল ও পৌর ছাত্রদলের সভাপতি ইমরান হোসেন স্বপন আহত হন।</span> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><p style="margin: 1em 0px 0px; font-family: Helvetica, Arial, sans-serif; color: rgb(102, 102, 102); font-size: 12px;"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1544957042_th.jpg" style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px; margin-right: 7px;" alt="" align="left" border="0px">খেতাব আর মুকুট বিহীন একজন মুক্তি যোদ্ধা যিনি আদ্যবধি মুক্তি যোদ্ধা হিসাবে নিজেকে পরিচিত করবার চেষ্টা করেন নাই। কি দূর্ভাগা এই সন্তান ! বিজয়ের মাস; আজ হচ্ছে বিজ<span class="m_8378608696058422126m_2392207199212817456gmail-text_exposed_show" style="font-family: inherit; display: inline;">য় দিবস ১৬ই ডিসেম্বর। ধিক্কার জানায় এইরকম একজন লাজুক ও ত্যাগী মুক্তি যোদ্ধাকে; আবার গর্বেও বুকটা আমার ভোরে উঠে যখন দেখি উনিতো আমারই আপন বড়ো ভাই।</span></p><div class="m_8378608696058422126m_2392207199212817456gmail-text_exposed_show" style="display: inline; font-family: Helvetica, Arial, sans-serif; color: rgb(102, 102, 102); font-size: 12px;"><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;">নাম শফিকুল কাদের (বাবু), ১৯৭১ সালের মে মাসে মাত্র ১৬ বছর বয়সে তদানিন্তন পশ্চিমা সেনাবাহিনীর বর্বরতার হাত থেকে জীবন রক্ষার জন্য গুটিকয়েক যুবকদের সাথে গভীর রাতে ভারতে মুক্তিযুদ্ধ ট্রেনিং নেওয়ার উদ্দেশ্যে গভীর রাতে ঘুটঘুটে অন্ধকারে ইলশাবারী গ্রাম ত্যাগ করেন। and nbsp;<span style="font-family: inherit;">বাবা ছিলেন উত্তর বঙ্গের সর্ববৃহৎ রেলওয়ে জংশন সান্তাহারের ষ্টেশন ম্যানেজার। ছিলো আমাদের বিশাল বাগান সহ বংলো বাড়ী, মালি আর পায়েক পিয়াদা সহ জৌলস জীবেনযাত্রা। সান্তাহার শহর ছিলো বেশীরভাগ বিহারী ও পাকিস্তানী রেলওয়ে কর্মকর্তা ও কর্মচারী ও ব্যাবসায়িদের বাসস্থান।</span></p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;">জাতির পিতা শেখ মুজিবে রহমানের ঐতিহাসিক যুদ্ধের ভাষনের পর পরই শুরু হয় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা। রাতে শুনতে পেলাম জয় বাংলা আর অন্যদিকে নারাই তাকবীর।দুই জাতির লোক হুঙ্কার দিয়ে ছুটছে লাঠি, ধনুক, বল্লম, তরবারী হাতে। চারিদিকে and nbsp;চিৎকার, কান্না আর গোঙানির আওয়াজ।সেই সাথে আমাদের বাসায় রেডি করে রাখা হচ্ছিলো ডেচকি ভর্তি গরম পানি আর ইট পাটকেল যদি বিহারীরা আমাদের বাসা অক্রমন করে তাহলে দোতলা থেকে যেনো গরম পানি আর ইট পাটকেল তাদের গায়ে নিক্ষেপ করে বাধা দিতে পারি।</p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;">রাত তখন গভীর, বারান্দায় উঁকি মেরে দেখলাম আমার বাবু ভাই, আমাদের বাংলো বাড়ীর বাগানে একজনকে জগে করে পানি খাওয়াচ্ছে। পরবতীতে দেখলাম পরিশিষ্ট পানি দিয়ে সেই তৃষনার্ত বঙ্গবীর তাঁর রক্ত মাখা তরবারী পরিস্কার করছেন। উনার নাম ছিলো আজিজার যিনি ছিলেন শহরের পার্শ্ববর্তী গ্রাম মালশনের এক সাহসী বাসিন্দা। উনি এবং সাথের কর্মীরা না আসলে হয়তোবা সাহেব পাড়ার সব বাঙালী রেলওয়ের কর্মকর্তা ও তাঁদের ছেলেমেয়ে সহ মারা যেতাম। সেই রাতে অসংখ্য পাকিস্তানি বিহারী এই আজিজার ও তাঁর সহকারীদের হাতে ধরাশায়ী হয়। বেঁচে থাকে শুধু শিশু, কিশোর কিশোরী আর মহিলা যারা আশ্রয় নেয় সান্তাহার রেলওয়ে ষ্টেশনে। এদের সবাই আমার বাবাকে দুই দিন ধরে জিম্মি করে রেখেছিলো ষ্টেশনে এই ভেবে যে উনি থাকলে তাঁরা সবাই রক্ষা পাবে।</p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;">এরই মধ্যে বাবা একজন মহিলা আয়ার মাধ্যমে খবর পাঠালো যে, পাকিস্তান সেনাবাহিনী ট্রেনে করে দুই দিন পর সান্তাহার ষ্টেশনে পৌঁছবে। আমরা যেনো এক্ষনই বাংলো বাড়ী ছেড়ে মনসুর সাহেবের পরিবারের সাথে উনাদের গ্রামের বাড়ীতে চলে যায়। মনসুর সাহেবও রেলওয়ের একজন প্রতাপশালী কর্মকর্তা ছিলেন এবং আমরা একইসাথে দুই পরিবার পাশাপাশি থাকতাম। উনার ছেলে মেয়ে ও আমরা সব ভাই বোন এক সাথে থাকতাম ঘুরতাম, খেলতাম, খেতাম এমনকি কাতে ভূতের গল্পগুলো শুনে ভয়ে একসাথে ঘুমাতাম। আমরা ছিলাম একটি একান্নভুক্ত পরিবারের মতন।</p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;">ভোর হবে হবে ভাব; দোতালা থেকে আমাদের কেউ কেউ রেল লাইনের অপর প্রান্তে কিছু একটা দেখতে পেলো। and nbsp;রেলওয়ে লাইনের একপার্শে ছিলো সাহেবপাড়া যেখানে আমরা থাকতাম আর অন্যপার্শে ছিলো বাবু পাড়া। ভোর হতে না হতেই শুনলাম বিহারীরা শক্তি সন্চয় করে আমাদের দিকে এগিয়ে আসছে। রেললাইনের অপর প্রান্তে বল্লম আর লাঠির ডগা গুলোন দেখতে পাচ্ছিলাম। দেরী না করে অগ্যাতা টোপলা টুপলি সুটক্যাস সহ বাসা ত্যাগ করে পার্শ্ববর্তী গ্রামের দিকে ছুটলাম। অন্যদিকে আমার বাবু ভাই, পাশের বাসার চার্লী ভাই আমাদের বাবুর্চী জাকির ভাইকে সংগে নিয়ে ষ্টেশন থেকে হাসপাতালে নিবার নাম করে বাবাকে চ্যাংদোলা করে কাঁনধে নিয়ে পালিয়ে শহর ত্যাগ করে। শহর ছেরে মেঠো পথ দিয়ে গ্রামে যাবার পথে গ্রামের পথে পথে তীর ধঁনুক হাতে সবাই আমাদের স্বাগত জানাচ্ছিলো আর সাথে মুড়ী গুর ও পানি দিয়ে আপ্যায়ন করছিলো।</p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;">আশ্রয় নিলাম আমাদের পাশের বাসার মনসুর সাহেবের গ্রামের বাড়ী সিমলাতে যা নাকি মাত্র ১০ মাইল শহর থেকে দূরে অবস্হিত। দুদিন পরেই শুনতে পেলাম ঠাস ঠাস ঠাস গুলির শব্দ আর দুরুম দুরুম গোলার আওয়াজ। পাকিস্তানি আর্মি ট্রেন যোগে সান্তাহার শহরে প্রবেশ করছে। ভয়ঙ্কর এক অনুভূতি কিন্তু বয়সের স্বল্পতার কারনে ভয় ভীতি পাবার মতন মানসিক পরিপাক্কতা তখনো হয় নাই বিধায় পুরো ঘটনাটাই কেমন যেনো এডভেন্চোরস মনে হচ্ছিলো। আমার বয়স মাত্র ৯ বছর; একটু ইঁচরে পাকা ছিলাম বৈকি। and nbsp;<span style="font-family: inherit;">এর কিছুদিন পরেই আমরা আরও ক্ষানিকটা দূরের গ্রাম ইলশাবাড়ীতে জৈনক এক ভদ্রলোকের বাড়ীতে আশ্রয় গ্রহন করি। উল্লেখ্য যে ইনিও বাবার সাথে চাকরী করতেন নাম ছিলো ইবারত আলী এবং মনসুর সাহেবের আত্বীয় এবং উনার কাচারী ঘড়ে আমরা যুদ্ধের পুরো সময়টুকু অবস্হান করি।</span></p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;">বাবা মা সহ ছয় ভাইবোন আমরা এই and nbsp;ছোট্ট একটি কাচারী ঘড়ে থাকতাম। দুমাস পরে, স্বর্ন ও পরে সাইকেল বিক্রির সময় অনুভব করছিলাম যে অভাব আমারদের ধীরে ধীরে গ্রাস করতে যাচ্ছে। তবে সেই সময় গ্রামবাসীদের উপকারের কথা ভুলবার নয়। গ্রামবাসীদের অনেকে আমাদের ঘড়ে মাসের চাল ডাল দিয়ে যেতো।পিঠা পিঠি দুই ভাই, আমি আর বাবলা.... পুকুর, খাল বিলে মাছ ধরতাম আর পুকুর পার থেকে জংলীকচু তুলে আনতাম। এই ভাবেই চলছিলো আমাদের বেঁচে থাকবার সংগ্রাম। এই গ্রামে থাকা অবস্হায় অসংখ্যবার পান্জাবীদের আক্রমণে এক গ্রাম থেকে আর এক গ্রামে টোপলা টুপলি মাথায় নিয়ে ছুটেছি। কি বীভৎস আর ভিতীকর সময় কাটিয়েছি যা ভাষায় বলা যাবে না। আরও ভয় হতো আমাদের জোয়ান ভাই বাবু (শফিকুল কাদের) কে নিয়ে, কারন দালাল আর রাজাকার বাহিনী জোয়ান ছেলেদের দেখলেই পান্জাবীদের খবর দিতো বা মেরে ফেলতো।<img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1544957079_th.jpg" alt="" align="right" border="0px" style="margin-left: 7px;"></p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;">বাবা মা অগ্যতা উপায় অন্তর না পেয়ে, ইলশাবাড়ী গ্রামের আমাদের পাশের বাড়ীর ফটিক, চার্লী, বেলাল, মন্জু, আলমগীর, টিপু ও হাবলু ভাইয়ের সাথে গভীর রাতে ভাইকে বিদায় দিলেন। বুঝতে পারছিলাম না, কেনো অনেকে বিদায়ক্ষনে কাঁদছিলেন?এখন অনুধাবন করি ও বুঝতে পারি ঐ কান্নার কথা; যখন পরবর্তীকালে জানতে পারি যে কতো শহীদ ভাই, বোন, ছেলে, মেয়ে, বাবা যারা আর যুদ্ধের পর বাড়ী ফিরে আসতে পারেন নাই।<br></p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;">যাকগে এই দলের বেশীরভাগ যুবকরা সেক্টর নং৭, ভারতের খিদিরপুর ক্যাম্পে ট্রেনিং নেয়।ক্যাম্প ইনচার্জ ছিলেন মোঃ আব্দুল জলিল, কমান্ডার নুরুজ্জামান এবং ওস্তাদ মোসলেম মোল্লা।দেশ স্বাধীন হবার দুদিন পর আমার ভাই আরও দুজনের সাথে ইলশাবাড়ী গ্রামে আগমন করে। বাবু ভাই বাড়ীর সামনে গায়ে কম্বল আর হাতে ষ্টেনগান সহ ভোর বেলায় দাঁডিয়ে ছিলো সবাইকে চমক দেবার জন্য কিন্তু কেউ তাঁকে চিনতে পারলো না। রুগ্ন, জটলা চুল আর বিভৎস চেহারায় তাকে অনেক কাহিল দেখাচ্ছিলো। মা বাবা আমরা সবাই কেউবা কেঁদে উঠলাম আবার কেউবা আনন্দে মেতে উঠলাম। and nbsp;<span style="font-family: inherit;">মাকে জড়িয়ে ধরবার পর পরই দেখতে পেলাম একজন মুক্তি যোদ্ধার আসল রুপ। খুশীতে এবার ভাই, দুই হাতে ষ্টেনগান উঁচিয়ে আকাশের দিকে তাক করে ব্রাশ ফায়ার করা শুরু করলো। আর আমি এবং আমার ভাই বাবলা সেই সময় কুঁজু হয়ে গরম সোনালী রংএর গুলির খোসা গুলোন কুড়িয়ে ছিলাম।</span><br></p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1544957121_th.jpg" alt="" align="left" border="0px" style="margin-right: 7px;">দেশ স্বাধীন হলো, ফিরলাম শহরে। জানলাম না কোনদিন যে, অস্ত্র জমা দেবার পর ভাই কোন মুক্তি যোদ্ধার সার্টিফিকেট নেয় নাই ? যাকগে, স্বাধীনতার চার বছরের পর পরই বাবা চাকরী থেকে অবসর গ্রহন করেন। এইবার এক্কেবারে আমাদের পুরা পরিবারকে আকাশ থেকে মাটিতে পরার মতো অবস্হা। জানলাম তখন যে বাবার কোন জমানো টাকা বা নিজস্ব বাড়ীও সান্তাহারে ছিলো না। শুরু হলো কষ্টের জীবন।ঠিক সেই মূহুর্তে, মুক্তি যোদ্ধা ভাই বাবু মাত্র ২০ বছর বয়সে সংসারের হাল ধরলেন। এইচ এস সি পরীক্ষার পর তাঁর আর পড়াশুনার সুযোগ হলো না। অক্লান্ত পরিশ্রম করে তিনি ছোট ছোট আকারে চাপাতা,চিনি ও দুধের প্যাকেট আর ঢাকা থেকে বিভিন্ন রকমের কাপড়, কসমেটিকসসহ অন্যান্য সামগ্রী এনে দোকানে দোকানে ডেলিভারী দিতেন। এইভাবেই শুরু হলো বাবা মা সহ ৬ ভাই বোনের সংসার। ভাইয়ের সথে পড়াশুনা করেছে ঐসব বন্ধুদের মধ্যে কেউবা ডাক্তার কেউবা ইন্জিনিয়ার। আজ আমরাও ভালো চাকরী করছি এবং সবাই আমরা ভালো আছি। আমি বিমান বাহিনী হতে একজন ফাইটার পাইলট এবং স্কোয়াড্রন লীডার হিসাবে অবসর গ্রহন করি। পরবর্তীতে বিভিন্ন মালটিনেসনাল কোম্পানীতে ১০ বছরেরও অধিক সময়কাল চাকুরী করি। এখন আবারও ফ্লাইং এ ফিরে এসে বোয়িং 787 এর ক্যাপ্টন হিসাবে US Bangla Airlines এ চাকরী করছি।</p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;">গত দশ বছর আওয়ামিলীগ সরকারের সময় সুযোগ থাকা অবাস্হাতেও বহুবার অনুরোধ করেও বাবু ভাইকে মুক্তিযাদ্ধার খাতায় নাম লিখাতে পারি নাই। কারন উনার কাছে সার্টিফিকেট নাই। উনার দুই জমজ ছেলে মেয়ে এবার এইচ এস সি পরীক্ষা দিবে এবং আশা করছি তাঁরা আশানুরুপ ভালো ফলও করবে। দু:খ যে, আজ তাদের বাবার মুক্তি যোদ্ধা হিসাবে নাম থাকলে হয়তোবা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি হওয়টা যেমনটি সহজ হতো তেমনি সহজ হতো পড়াশুনা শেষ করে চাকুরীতে সুযোগ পাওয়া। ভাইয়ের মুক্তিযাদ্ধা হিসাবে মাসিক ভাতার কথা তো বাদই দিলাম। যাকগে আমি উনার বিয়ের পর থেকেই উনার সংসারের সব ভরোন পোষন ও ছেলে মেয়ের পড়াশুনা দায়িত্ব বহন করে আসছি।</p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;">বিজয়ের মাস ! এইতো সেদিন গত ডিসেম্বর মাসের ১ তারিখে প্রায় ৪৭ বছর পর দেখতে গিয়েছিলাম সেই গ্রাম “ইলসা বাড়ী”। স্বাধীনতা যুদ্ধের ১ বছর সময় আমরা এই গ্রামে আশ্রয় নিয়েছিলাম। ৪৭ বছর পর তাদের কারও কারও সাথে সাক্ষাৎ করতে পেরে এবং সেই পুরানো বাড়ী গুলোন দেখে আবেগে বেশ আপ্লুতো হয়েছি বৈকি। মনে পরে যখন বয়স্ক মুরব্বীদের সাথে উঠানে বসে বিবিসি বাংলা ও আগরতলা রেডিও ষ্টেশন থেকে মুক্তিযুদ্ধের এক এক জয় হবার যুদ্ধ সাথে আপেল মাহমুদ, আব্দুল জব্বারের গা শিহরে দেওয়া স্বাধীনতার গান শুনতাম। এক অসাধারন অনুভূতি নিয়ে ঢাকায় ফিরছি। আর এই সুখ, দু:খ, হাঁসি আর কান্নার মিশ্র অনুভূতির কারনেই এই গল্পটুকু আমার বিজয় দিবসের উপহার। আফসোস যে একজন মুক্তিযোদ্ধার সত্য গল্পটুকু আজ রুপকথা হয়ে রয়ে গেলো।</p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;">বাবু ভাই আগাগোড়াই একটু স্বল্পভাষী, সহজ সরল ও লাজুক যুবক ছিলেন। উনি তার এই লাজুক স্বভাব আর পরবর্তীতে আত্মবিশ্বাসের অভাবের জন্য নিজেকে গুটিয়ে নেন এবং সবার কাছ থেকে দূরে সরিয়ে নেন। এখন তো বয়সের ভারে একেবারে কম কথা বলেন। and nbsp;</p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;"><span style="font-family: inherit;">শফিকুল কাদের (বাবু) যার নাম আজ মুক্তি যোদ্ধা হিসাবে গন প্রজাতনত্রী বাংলাদেশ সরকারের খাতায় কোন স্হান নেই বটে কিন্তু আমার বাবা, মা, ভাই বোন, বন্ধু ও ইলশাবাড়ী গ্রামের অনেক মুক্তিযাদ্ধার হ্নদয়ে and nbsp; সে থাকবে এই ভাবে........! and nbsp; and nbsp;</span></p><p style="margin: 1em 0px; font-family: inherit;"><span style="font-family: inherit;">এক সাগরের রক্তের বিনিময়ে ,</span><span style="font-family: inherit;">বাংলার স্বাধীনতা অনলো যারা,</span><span style="font-family: inherit;">আমরা তোমাদের ভুলবোনা ,</span><span style="font-family: inherit;">আমরা তোমাদের ভুলবোনা । and nbsp;</span></p></div> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1543915934_th.jpg" alt="" align="left" border="0px" style="margin-right: 7px;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে না দেয়া এবং স্কুলে ডেকে বাবা-মাকে অপমান করায় ছাত্রী অরিত্রি অধিকারী (১৫) আত্মহত্যার বিষয়ে দুঃখ প্রকাশ করে দেশবাসী ও ছাত্রীর বাবা-মায়ের প্রতি ক্ষমা চেয়েছেন ভিকারুননিসা স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক নাজনীন ফেরদৌস।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) সকালে গণমাধ্যম কর্মীরা বেইলিরোডের স্কুল প্রাঙ্গনে তার কার্যালয়ে গেলে সবার সামনে হাত জোর করে ক্ষমা চান তিনি। and nbsp;</span><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">নাজনীন ফেরদৌস বলেন, বিষয়টি অনাকাক্ষিত। ঘটনাটি এতদূর গড়াবে তা অনুধাবন করতে পারিনি। এরই মধ্যে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর কি ব্যবস্থা নেওয়া হবে তা মন্ত্রণালয় নির্ধারণ করে দেবে। আত্মহত্যার ঘটনায় আমি সবার কাছে ক্ষমা চাচ্ছি।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">তিনি বলেন, আমাদের স্কুলে কিছু নিয়মকানুন আছে, এই নিয়মকানুন মেনেই বাবা-মা এ স্কুলে আসে। তার বাবা-মা শাখাপ্রধানের কাছে এসে সরি বলেন। এ ছাড়া শাখাপ্রধান বলেছেন-আমাদের নিয়মকানুন আছে, সেটি আপনাকে মানতে হবে। তার পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার সুযোগ নেই; আর সেটি উনারা মানতে পারেননি।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">এর আগে সকালে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ভিকারুননিসা স্কুল পরিদর্শনে গিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলেন। প্রায় এক ঘণ্টাঅবস্থান করে শেষে বের হয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, এ ঘটনায় তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। and nbsp;</span><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">আগামী তিনদিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিবে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর স্কুল কর্তৃপক্ষের কোনো ত্রুটি পেলে,স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এসময় শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে পড়েন শিক্ষামন্ত্রী।</span> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1543915043_th.jpg" alt="" align="left" border="0px" style="margin-right: 7px;"><span style="color: rgb(68, 73, 80); font-family: Helvetica, Arial, sans-serif; font-size: 12px; white-space: pre-wrap; background-color: rgb(241, 240, 240);">অাসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাকের পার্টি ঢাকা ১৬ অাসনের মনোনীত প্রাথী, জনাব অালী অাহমেদ এর পক্ষে এক কর্মীসভা</span><span style="background-color: rgb(241, 240, 240); color: rgb(68, 73, 80); font-family: Helvetica, Arial, sans-serif; font-size: 12px; white-space: pre-wrap;"> অনুষ্ঠিত হয়।</span><div style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(68, 73, 80); font-family: Helvetica, Arial, sans-serif; font-size: 12px; white-space: pre-wrap; background-color: rgb(241, 240, 240);">রবিবার ৩ডিসেম্বর রূপনগর থানা,ইষ্টার্ন হা</span><span style="background-color: rgb(241, 240, 240); color: rgb(68, 73, 80); font-family: Helvetica, Arial, sans-serif; font-size: 12px; white-space: pre-wrap;">উজিং ইউনিটের আয়োজনের মধ্যমনি ছিলেন ঢাকা-১৬ আসনে জাকের </span> and nbsp;<span style="color: rgb(68, 73, 80); font-family: Helvetica, Arial, sans-serif; font-size: 12px; white-space: pre-wrap; background-color: rgb(241, 240, 240);">পার্টির</span> and nbsp;<span style="font-size: 12px; white-space: pre-wrap; background-color: rgb(241, 240, 240); font-family: Helvetica, Arial, sans-serif; color: rgb(68, 73, 80);">মনোনীত সংসদ পদ প্রার্থী আলী আহমেদ।</span></div><div style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="background-color: rgb(241, 240, 240); color: rgb(68, 73, 80); font-family: Helvetica, Arial, sans-serif; font-size: 12px; white-space: pre-wrap;"><br></span></div><div style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="background-color: rgb(241, 240, 240); color: rgb(68, 73, 80); font-family: Helvetica, Arial, sans-serif; font-size: 12px; white-space: pre-wrap;">উক্ত কর্মীসভায় জাকের পার্টির সকল নেতা কর্মীরা,জনাব অালী অাহমেদ ও গোলাপ ফুল প্রতীকের পক্ষে সর্বোত্নক একই মনোভাবে কাজ করার জন্য অংঙ্গীকারাবদ্ধ হন।</span><br></div><div style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="background-color: rgb(241, 240, 240); color: rgb(68, 73, 80); font-family: Helvetica, Arial, sans-serif; font-size: 12px; white-space: pre-wrap;"><br></span></div><div style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(68, 73, 80); font-family: Helvetica, Arial, sans-serif; font-size: 12px; white-space: pre-wrap; background-color: rgb(241, 240, 240);">উক্ত সভায়, ইঞ্জিনিয়ার জনাব এ,এইচ,এম,রফিক মিয়া(সদস্য জাতীয় স্থায়ী কমিটি জাকের পার্টি),রূপনগর থানা জাকের পার্টির সভাপতি জনাব সৈয়দ অালী শেখ,জনাব হারুন অর রশিদ(সহ সভাপতি) এবং ঢাকা মহানগর উত্তরের সহ সভাপতি জনাব রাশেদুল ইসমাল বাবু,রূপনগর থানা ছাত্র ফ্রন্টের প্রচার সম্পাদক, মেহেদী হাসান সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।</span> and nbsp; and nbsp;</div> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1543575679_th.jpg" alt="" align="left" border="0px" style="margin-right: 7px;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) বিকেল ৪টার দিকে ঢাকা থেকে সড়ক পথে গোবিন্দগঞ্জে ফেরেন এমপি আবুল কালাম আজাদ। তার আসার খবরে দুপুর থেকেই দলীয় নেতাকর্মী, কর্মীসমর্থকরা দক্ষিণ বাসস্টান্ড এলাকায় জমায়েত হন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">এমপি আবুল কালাম আজাদ বাস থেকে নামার পর জনস্রোত দেখে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। একপর্যায়ে তিনি নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষকে বুকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে থাকেন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">দক্ষিণ বাসস্টান্ড থেকে নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে উপজেলা পরিষদের সামনে পৌঁছান আবুল কালাম আজাদ। এ সময় তার নামে স্লোগান দেয় নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষ।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">পরে নিজ বাসার সামনে তিনি উপস্থিত সকলের উদ্দেশে কথা বলতে গিয়ে কিছু সময়ের জন্য আবারও কান্নায় ভেঙে পড়েন। আবেগাপ্লুত আবুল কালাম আজাদ বলেন, জনপ্রিয়তা আর যোগ্যতা থাকার পরেও দল তাকে মনোনয়ন দেয়নি। দল যোগ্য মনে করে একজনকেই মনোনয়ন দিয়েছেন। দল ও জননেত্রীর শেখ হাসিনার প্রতি আস্থা রেখেই সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছেন। তাই কষ্ট ভুলে নৌকার পক্ষে সবাইকে কাজ করতে হবে।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">তিনি আরও বলেন, বিগত সময়ে এলাকার উন্নয়ন কর্মকাণ্ড অব্যাহত রেখেছেন। নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষের সুখ-দুঃখে পাশে ছিলেন। তিনি এখনো সবার পাশেই আছেন এবং থাকবেন বলেও জানান।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">এ আসনে আ.লীগের মনোনয়ন পান সাবেক সাংসদ সদস্য প্রকৌশলী মনোয়ার হোসেন চৌধুরী। তিনি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও দলের মনোনয়ন পেয়েছিলেন। কিন্তু আবুল কালাম আজাদ স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিপুল ভোটে জয়ী হন। and nbsp;</span><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">বর্তমানে আবুল কালাম আজাদ এরআগে ইউপি চেয়ারম্যান, উপজেলা চেয়ারম্যান ও পৌর মেয়র হিসেবেও নির্বাচিত হয়েছিলেন।</span><div style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;">বুধবার (২৯ নভেম্বর) বৃহস্পতিবার মনোনয়ন না পেয়ে রিক্ত হাতে নিজ এলাকায় ফিরে যান। এসময় নেতাকর্মীদের সামনে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তিনি। তার কান্না দেখে দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষও চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি। and nbsp; and nbsp;</div> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">বিডিহটনিউজ: and nbsp;<br></span><div><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1543574340_th.jpg" alt="" align="left" border="0px"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">একাদশ জাতিয় সংসদ নির্বাচনে ময়মনসিংহ -১১ আসনের একমাত্র মহিলা সংসদ সদস্য and nbsp;প্রার্থী and nbsp;হিসাবে জাকের পার্টি and nbsp;পক্ষ থেকে and nbsp;নাজমা আক্তার তার প্রার্থীতা দাখিল করেন। নাজমা আক্তার জাকের পার্টি মহিলা ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদিকা হিসাবে দ্বায়িত্বভার পালন করছেন। এছাড়াও তিনি গনমানুষের সেবক হিসাবে এলাকায় খুবই জনপ্রিয় মুখ। and nbsp;</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);"><br></span></div><div><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">এক প্রশ্নের জবাবে নাজমা আক্তার এই প্রতিবেদককে and nbsp;বলেন, আমি সব সময় সাধারন মানুষের সেবা’য় নিজেকে উৎসর্গ করেছি। তাদের প্রতিনিধি হিসাবে and nbsp;</span><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">পাশে থেকে আগামীতে সেবা করতে চাই। নির্বাচিত হলে এলাকার নারীর ক্ষমতায়ন প্রতিষ্ঠিত করতে সাধ্যমতো চেষ্টা করবো। শিক্ষিত তরুন- তরুনী ও বেকার যুবকদের কর্ম সংস্থান নিশ্চিত করবো। কর্মমুখী শিক্ষার সঠিক বাস্তবায়ন ঘটিয়ে সোনার বাংলা গড়বো।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);"><br></span></div><div><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; font-size: small; background-color: rgb(255, 255, 255);">উল্লেখ্য গত ২৮নভেম্বর জাকের পার্টর চেয়ারম্যানের নির্দশে তিনি উপজেলার রিটার্নিং অফিসার এর কার্যালয় মনোনয়ন ফরম জমা দেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন-মেহেদী হাসান, প্রচার-সম্পাদক জাকের পার্টি ছাত্রফ্রন্ট রূপনগর থানা ঢাকা , শিরিন রহমান সভানেত্রী ময়মনসিংহ জেলা জাকের পার্টি মহিলাফ্রন্ট, লাইলি বেগম সাধারণ সম্পাদিকা ময়মনসিংহ জেলা মহিলাফ্রন্ট, মিনা আক্তার সভানেত্রী ভালুকা পৌরসভা, কাসেম সভাপতি ময়মনসিংহ জেলা জাকের পার্টি , সেলিম সভাপতি ভালুকা থানা জাকের পার্ট, খোকন মিয়া সাধারণ সম্পাদক জাকের পার্টি বিরুলিয়া অঞ্চল, এছাড়াও ময়মনসিংহ জেলার সকল থানার সভাপতি ও সম্পাদকগন এবং অঙ্গসংগঠনের নেতা-নেত্রীবৃন্দ।</span> </div> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1541843122_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">উৎসব আমেজে ঢাকা-১৬ আসনে জাকের পার্টি মনোনীত সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী আলী আহম্মেদ একটি মটর শোভাযাত্রা ও পথসভা’র মধ্যদিয়ে নির্বাচন পূর্ব গনসংযোগ এলাকার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে। অংশগ্রহনকারীদের হাতে জাকের পার্টির নির্বাচনী প্রতীক গোলাপ ফুল সহ জাকের পার্টির সভাপতির ছবি শোভা পায়।<br><div>শুক্রবার ৯নভেম্বর বিকাল ৩টায় মিরপুর অরজিনাল ১০ আবু তালেব স্কুলের সামনে থেকে জাকের পার্টি মনোনীত প্রার্থী আলী আহম্মেদের নেতৃত্বে শোভা যাত্রাটি শুরু হয়। মটর শোভাযাত্রাটি লালমাটি হয়ে কালশী রোড, ধ, সি ব্লক, সিরামিক রোড, পল্লবী থানা রোড, বর্ধিত পল্লবী, দুয়ারীপাড়া, রুপনগর হয়ে পুনরায় আবু তালেব স্কুলের সামনে এসে শেষ হয়।</div><div><iframe src="https://www.youtube.com/embed/RsEde2D8CLo" allow="accelerometer; autoplay; encrypted-media; gyroscope; picture-in-picture" allowfullscreen="" width="560" height="315" frameborder="0"></iframe><br></div>শোভাযাত্রায় অংশ নেন, আলহাজ¦ ইঞ্জি: এ এইচ এম রফিক মিয়া, সদস্য জাতীয় স্থায়ী কমিটি জাকের পার্টি, চুন্নু মোল্লাহ, সভাপতি পল্লবী থানা জাকের পার্টি, বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আলী সভাপতি রুপনগর থানা জাকের পার্টি, হারুনুর রশিদ সহ-সভাপতি রুপনগর থানা, হাজী আঃ রশিদ সহ-সভাপতি রুপনগর থানা, আমিনুল ইসলাম সাধারন সম্পাদক পল্লবী থানা, নিজাম উদ্দিন সহ-সভাপতি পল্লবী থানা জাকের পার্টি, ঢাকা মহানগর উত্তরের যুবফ্রন্ট সভাপতি শরফুদ্দিন আহাম্মেদ মিন্ময়, রাশেদুল ইসলাম বাবু সহ সভাপতি ছাত্রফ্রন্ট ঢাকা মহানগর উত্তর, ওমর ফারুক ভুইয়া, দপ্তর সম্পাদক ছাত্র ফ্রন্ট ঢা,ম,উ, বাবুল সভাপতি ছাত্রফ্রন্ট পল্লবী থানা, দ্বীন ইসলাম মিঠু, সভাপতি পল্লবী থানা যুবফ্রন্ট, জসিম উদ্দিন সভাপতি পল্লবী থানা বাস্তুহারা ফ্রন্ট, আল আমীন গাজী সাধারন সম্পাদক পল্লবী থানা যুব ফ্রন্ট, রাজা মাহমুদ হানিফ সহ-সভাপতি রুপনগর থানা যুবফ্রন্ট, মেহেদী হাসান প্রচার সম্পাদক ছাত্রফ্রন্ট রুপনগর থানা, মাসুম, কবিরসহ এলাকার সর্বস্তরের হাজার হাজার জনগন।<br>তিনি বিভিন্ন পথ সভায় বলেন, গনতন্ত্রের ধারাকে অব্যাহত রাখতে, আর্তমানবতার কল্যাণে অর্থনৈতিক মুক্তি ও সোনার বাংলাকে প্রকৃত সোনার বাংলায় রূপান্তরের লক্ষ্যে জাকের পার্টির সরকার প্রয়োজন। আমরা মুক্তিযুদ্ধে জয়ী হলেও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঠিক বাস্তবায়ন ঘটাতে আমরা আজও পারিনি। অর্থনৈতিক মুক্তি, গনতন্ত্রের ধারাকে অব্যাহত, নাগরিক মুক্তি, নারীর মুক্তি, বেকারের চাকরি নিশ্চিত করতে পারিনি।<br><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1541843151_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">আমি নির্বাচিত হতে পারলে এলাকার মাদক নিয়ন্ত্রন, এলাকার শিশুদের জন্য খেলার মাঠ, জলাবদ্ধতা রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন, পথশিশুদের উন্নত শিক্ষা ব্যবস্থা, গনশিক্ষামুখী নারী শিক্ষার ব্যবস্থা ও কর্মমূখী নারীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করবো। ঢাকা-১৬ আসনকে একটি উন্নত আধুনিক শহরের সকল নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করবো। </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/11/02/1541197412_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">“আমি ঢাকা-১৬ আসনের গনমানুষের সেবক হতে চাই” এভাবেই গনসংযোগে নিজের অবস্থানকে পরিস্কার করলেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীক প্রত্যাশী আলহাজ্ব ফকির মহিউদ্দিন।<br>তিনি বলেন, আওয়ামীলীগ সভানেত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আমলে দেশে বাস্তবায়িত ও প্রস্তাবিত সকল উন্নয়ন কার্যক্রমকে অবহিতকরনের জন্যই এই জনসংযোগ। আমরা সকলে এক একজন আওয়ামীলীগের কর্মী। আমরা নৌকার কর্মী। দেশের মানুষ জানেন ও বিশ্বাস করেন নৌকার জয় মানে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের জয়। উন্নয়ন অগ্রগতির জয়।<br>শুক্রবার ২ নভেম্বর মিরপুর-১০ ও এর আশপাশের এলাকায় আওয়ামীলীগ শাসনামলের উন্নয়ন বার্তা সকলের কাছে পৌছে দেয়ায় জন্য গনসংযোগ করেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামীলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব ফকির মহিউদ্দিন। বিকাল ৪টায় মিরপুর ১০ ফকিরবাড়ীস্থ তার দলীয় কার্যালয় হতে শুরু করে মিরপুর ১০ গোল চক্কর, বেনারশী পল্লী, জুট পট্টি, হোপ স্কুল ও এর আশপাশ হয়ে পুনরায়<br>ফকিরবাড়ীস্থ কার্যালয়ে এসে শেষ হয় এ গনসংযোগ কার্যক্রম।<br>এ গনসংযোগ কার্যক্রমে তার সাথে অংশ গ্রহন করেন, রমজান আলী ব্যাপারী, সাংগঠনিক সম্পাদক পল্লবী থানা আওয়ামীলীগ, রবিউল ইসলাম মনির, সেক্রেটারী ১২নং ইউনিট আওয়ামীলীগ, খালেদ মাহমুদ শিপলু, যুগ্ম সম্পাদক, পল্লবী থানা ছাত্রলীগ, তন্ময় চক্রবর্তী, জিএস বাংলাদেশ আয়ুর্বেদীয় কলেজ ছাত্র সংসদ, দেলোয়ার হোসেনসহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগের স্থানীয় বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবর্গসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও তার শুভাকাঙ্খীগন। </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style=""><div style=""><span style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 10pt;">বিডিহট নিউজ:</span></div><div style=""><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540613742_th.JPG" alt="" align="left" border="0px" style="margin-right: 7px;"><span style="font-family: SolaimanLipi;"><span style="font-size: 10pt;">জাকের পার্টি মনোনীত দলীয় প্রার্থীতা নিশ্চিতের পর পরই ঢাকা-১৬ আসনে গনসংযোগ শুরু করেছেন আলী আহমেদ। তিনি শুক্রবার জুমা’র নামাজের পর হতেই বিশাল সমর্থক বহর নিয়ে এলাকার ১২ নং এ,বি,সি,ডি, ধ ব্লকে মিছিল ও পথসভার মধ্যদিয়ে আনুষ্ঠানিকভবে নির্বাচনী গনসংযোগ শুরু করেন।</span></span></div><div style=""><span style="font-family: SolaimanLipi;"><span style="font-size: 10pt;">আগামী একাদশ জাতিয় নির্বাচনে জাকের পার্টি তার দলীয় প্রার্থী নির্বাচন করেছে। গত বৃহস্পতিবার বনানী জাকের পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকাসহ বিভিন্ন মহানগরীতে দলীয় প্রার্থী নিশ্চিত করা হয়। ঢাকা -১৬ আসনে জাকের পার্টির গোলাপ ফুল মার্কা নিয়ে নির্বাচনের জন্য আলী আহমেদকে মনোনীত করা হয়। আলী আহমেদ দলীয় প্রার্থীতা নিশ্চিতের পর পরই তার নির্বাচনী এলাকায় গনসংযোগে নেমে পড়েন। মিছিল ও পথসভার মধ্য দিয়ে আলী আহমেদ নির্বাচনী প্রচারনা শুরু করেন। তিনি বিভিন্ন পথ সভায় বলেন, গনতন্ত্রের ধারাকে অব্যাহত রাখতে, আর্তমানবতার কল্যাণে অর্থনৈতিক মুক্তি ও সোনার বাংলাকে প্রকৃত সোনার বাংলায় রূপান্তরের লক্ষ্যে জাকের পার্টির সরকার প্রয়োজন। and nbsp;</span></span><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540613795_th.JPG" alt="" align="right" border="0px" style="margin-left: 7px;"></div><div style=""><span style="font-family: SolaimanLipi;"><span style="font-size: 10pt;">তিনি আরো বলেন, and nbsp; মুক্তিযুদ্ধে জয়ী হলেও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঠিক বাস্তবায়ন ঘটাতে আমরা আজও পারিনি। অর্থনৈতিক মুক্তি, গনতন্ত্রের ধারাকে অব্যাহত, নাগরিক মুক্তি, নারীর মুক্তি, বেকারের চাকরি নিশ্চিত করতে পারিনি। and nbsp; আল্লাহর রহমত ও নৈকট্য পেয়ে সকল অশান্তি ও দুরাবস্থা হতে মুক্তির জন্য আমাদের খাজাবাবা ফরিদপুরী নির্দেশিত পথে চলতে হবে। সকলের অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। and nbsp;</span></span></div><div style=""><span style="font-family: SolaimanLipi;"><span style="font-size: 10pt;">আমি নির্বাচিত হতে পারলে এলাকার মাদক নিয়ন্ত্রন, এলাকার শিশুদের জন্য খেলার মাঠ, পথশিশুদের উন্নত শিক্ষা ব্যবস্থা, গনশিক্ষামুখী নারী শিক্ষার ব্যবস্থা ও কর্মমূখী নারীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করবো। ঢাকা-১৬ আসনকে একটি উন্নত শহরের সকল নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করবো।</span></span></div><div style=""><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540613851_th.JPG" alt="" align="left" border="0px" style="margin-right: 7px;"><span style="font-family: SolaimanLipi;"><span style="font-size: 10pt;">নির্বাচনী পথসভায় ঢাকা মহানগর উত্তরের যুবফ্রন্টের সভাপতি শরফুদ্দিন আহাম্মেদ মিন্ময় বলেন, একমাত্র জাকের পার্টিই পারে দেশে সকলের সহঅবস্থান নিশ্চিত করে মুক্তিযুদ্ধের চেতানার সঠিক বাস্তবায়নের মধ্যদিয়ে একটি শান্তির সোনার বাংলা জনগনকে উপহার দিতে। সেজন্য জাকের পার্টিকে ভোটের মাধ্যমে জয়ী হয়ে রাষ্ট্রিয় ক্ষমতায় আসতে হবে। সরকার গঠন করতে হবে। দেশের সকল জাকের ভাইবোনকে আজ একত্রিত হয়ে গোলাপ ফুলের জন্য কাজ করতে হবে। and nbsp; and nbsp;</span></span></div><div style=""><span style="font-family: SolaimanLipi;"><span style="font-size: 10pt;">গনসংযোগে অংশগ্রহন করেন, জাকের পার্টি পল্লবী থানা সহ-সভাপতি নিজাম উদ্দিন, সেক্রেটারী আমিনুল ইসলাম, সহ সম্পাদক মমিনুল ইসলাম, যুবফ্রন্টের পল্লবী থানা সভাপতি দ্বীন ইসলাম মিঠু, পল্লবী থানা ছাত্রফ্রন্ট সহ-সভাপতি রাশেদুল ইসলাম বাবু, রুপনগর থানা ছাত্রফ্রন্ট প্রচার সম্পাদক মেহেদী হাসান, স্বেচ্ছাসেবক ফ্রন্টের পল্লবী থানা সভাপতি নাইম হোসেনসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।</span></span></div><div style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px;"><br></div> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi;"><span style="font-size: 10pt;">বিডিহটনিউজ:<br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif;" startcont="this"></span><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540448744_th.jpg" alt="" align="left" border="0px"><span style="font-size: 10pt;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; background-color: rgb(255, 255, 255); font-size: 10pt;">মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ্ তায়ালার উপর ভরসা ও বিশ্ব ওলি খাজাবাবা ফরিদপুরী’র আদর্শ লালিত ও জাকের পার্টি চেয়ারম্যান পীরজাদা আলহাজ¦ খাজা মোস্তফা আমীর ফয়সাল মোজাদ্দেদী নির্দেশিত জাকের পার্টি যুব ফ্রন্ট ঢাকা মহানগর উত্তরের দলীয় সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের মনোবল বৃদ্ধি ও শৃংখলাবোধকে ফিরিয়ে এনে কেন্দ্রিয় নির্দেশনার সঠিক বাস্তবায়নই আমার প্রথম কাজ। and nbsp;</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; background-color: rgb(255, 255, 255); font-size: 10pt;">আগামী নির্বাচনের জাকের পার্টি যুব ফ্রন্ট ঢাকা মহানগর উত্তরের প্রতিটি থানার সকল পর্যায়ের নেতা/কর্মী তাদের মেধা, যোগ্যতা, সক্ষমতা ও পরিশ্রম দিয়ে জাকের পার্টি মনোনীত প্রার্থিকে বিজয়ী আনাতে আপ্রান চেষ্টা করবেন। আমরা বিশ্বাস করি আল্লাহপাকের অশেষ রহমত আমাদের সকল জাকের ভাইদের প্রতি রয়েছে। and nbsp;আমরা আমাদের লক্ষ্য পূরণে অবশ্যই সক্ষম হতে পারবো। and nbsp;</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; background-color: rgb(255, 255, 255); font-size: 10pt;">এভাবেই নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করলেন জাকের পার্টি যুব ফ্রন্ট ঢাকা মহানগর উত্তরের নবনির্বাচিত সভাপতি and nbsp;একেএম শরফুদ্দিন আহাম্মেদ মিন্ময়।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; background-color: rgb(255, 255, 255); font-size: 10pt;">তিনি আরো বলেন, আমরা আল্লাহকে রাজি খুশি রাখার জন্য রাজনীতি করি। আমরা সবাই একটি মতকে প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্য নিয়ে আগামীর পথে এগিয়ে যাচ্ছি। আমাদের দলে রয়েছে যোগ্য নেতৃত্ব। সে কারনে আপনারা সবাই খেয়াল করবেন, অন্যান্য দলে পদ-পদবী নিয়ে দলাদলি, হানাহানি, মতবিরোধ হয়ে থাকে আমাদের জাকের পার্টিতে এসব কিছু নাই। আমরা অর্থ বিত্ত্ববৌভবে মত্ত্ব নই। আমাদের সকল জাকের ভাই-বোন খাজাবাবা ফরিদপুরী’র দিকনির্দেশিত পথে চলি এবং পরকালে আল্লাহ্র সান্নিধ্য ও করুনা প্রার্থী। and nbsp;</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; background-color: rgb(255, 255, 255); font-size: 10pt;">তিনি বলেন, আমার বলতে দ্বিধা নেই যে, আমরা তথাকথিত অন্যান্য দলের মতো অতোটা শক্তিশালী হিসাবে নিজেদের গড়ে তুলতে পারিনি। আমরা জাকের পার্টি যুব ফ্রন্ট চেষ্টা করছি। আমি ঢাকা মহানগরের প্রতিটি থানা ও ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে সকলকে সাথে নিয়ে আগামীর পথ চলতে। সকল দূর্বলতা কাটিয়ে ঢাকা মহানগর উত্তরে একটি শক্তিশালী দল উপহার দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; background-color: rgb(255, 255, 255); font-size: 10pt;">ঢাকা মহানগর উত্তরের নতুন নেতৃত্ব নিয়ে ভাবনা সম্পর্কে জানতে চাইলে জাকের পার্টি যুবফ্রন্ট দারুস সালাম থানার সভাপতি মোঃ গোলাম মওলা এ প্রতিনিধিকে বলেন, যোগ্য নেতৃত্ব পারে দলে তার সক্ষমতার প্রমান দেয়ার সুযোগ দিতে। আমরা বর্তমান সভাপতির দিক নির্দেশনায় আগামীতে আমাদের সক্ষমতা প্রমান দিতে পারবো আশা করি। তার নেতৃত্ব ঢাকা মহানগর উত্তরের প্রতিটি সংগঠনকে শক্তিশালী করবে।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; background-color: rgb(255, 255, 255); font-size: 10pt;">শাহ আলী থানা সভাপতি মোঃ ফিরোজ বলেন, আমি তাকে দীর্ঘদিন ধরে চিনি-জানি। তিনি খুবই যোগ্য ও ভালো একজন দলীয় কর্মী। তার যোগ্য নেত্বত্বে আগামীতে দল উপকৃত হবে আশা করি।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; background-color: rgb(255, 255, 255); font-size: 10pt;">কাফরুল থানা সভাপতি মোঃ মনির খান বলেন, ঢাকা মহানগর উত্তর নিয়ে আমাদের কিছু সমস্যা ছিল বিষয়টি সত্য। তবে আমরা সবাই একসাথে নতুন নেতৃত্বকে সাথে নিয়ে আগামীর পথে এগিয়ে যেতে পারবো বলে আমার বিশ^াস। বর্তমান সভাপতি একজন ত্যাগী ও যোগ্য নেতা। তিনি দীর্ঘদিন পল্লবী থানা সভাপতির দ্বায়িত্ব পালন করেছেন। তার অভিজ্ঞতকে কাজে লাগিয়ে তিনি দলের প্রতিটি পর্যায়ে গতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে পারবেন।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; background-color: rgb(255, 255, 255); font-size: 10pt;">বনানী থানা সভাপতি সৈয়দ মোঃ হেলাল হোসেন বলেন, পূর্বের সকল সমস্যা কাটিয়ে উঠে দল একটি শক্তিশালী আবস্থান করতে পারবে। নতুন সভাপতি তার ১০বছরের সাংগঠনিক অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে আগামী নির্বাচনে সকল যুব জাকেরানকে সাথে নিয়ে দলের ও দেশের কাজে ভুমিকা রাখতে পারবে আমার বিশ^াস।</span><br style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif;"><span style="color: rgb(34, 34, 34); font-family: Arial, Helvetica, sans-serif; background-color: rgb(255, 255, 255); font-size: 10pt;">উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার (২৩ অক্টোবর) তারিখ বনানী জাকের পার্টি’র কেন্দ্রিয় কার্যালয়ে এক সভার আয়োজন করা হয়। সভার সভাপতিত্ব করেন, জাকের পার্টিও চেয়ারম্যান খাজা মোস্তফা আমীর ফয়সাল মোজাদ্দেদী। সভায় জাকের পার্টি যুব ফ্রন্ট ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি হিসাবে একেএম শরফুদ্দিন আহাম্মেদ মিন্ময়কে নির্বাচিত করে দ্বায়িত্ব প্রদান করা হয়।</span></span> </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540106367_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটের ভিতরে সাংবাদিক জামাল খাসোগজিকে হত্যার ঘটনায় সৌদি গোয়েন্দা দপ্তরের উপ প্রধান আহমেদ আল আসিরিসহ কয়েকজনকে বরখাস্ত করা হয় বলে জানিয়েছিল দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেল।<br><br>এদের মধ্যে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের ঘনিষ্ট সহযোগী সৌদ আল কা‌হ্‌তানিও ছিলেন বলে সৌদি খবরে উল্লেখ করা হয়েছে।<br><br>সতেরো দিন ধরে ক্রমাগত অস্বীকার করে যাওয়ার পর শনিবার সৌদি কর্তৃপক্ষ প্রথমবারের মত স্বীকার করলো যে ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটের ভিতরে জামাল খাসোগজিকে হত্যা করা হয়েছে।<br><br>প্রাথমিক তদন্তের বরাত দিয়ে ঐ খবরে বলা হয়েছে, কনস্যুলেটে জামাল খাসোগজি 'মারামারিতে' জড়িয়ে পড়লে তখন তার মৃত্যু হয়।<br>কিন্তু কে এই সৌদি গোয়েন্দা দপ্তরের উপ প্রধান আহমেদ আল আসিরি?<br>মেজর জেনারেল আহমাদ আল আসিরিকে যুবরাজের ঘনিষ্ঠদের মধ্যে অন্যতম প্রধান একজন ব্যক্তি মনে করা হয়।<br>২০১৫ সালের মার্চে ইয়েমেনর সাথে যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর আলোচনায় আসেন জেনারেল আসিরি।<br><br>ইয়েমেনে হুথি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের সংঘাতের সময় সৌদি আরবের প্রধান মুখপাত্র হিসেবে দেখা যায় তাঁকে। সেসময় বর্তমান সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ছিলেন সৌদি প্রতিরক্ষামন্ত্রী।<br>যা জেনারেল আসিরির উত্থানে ভূমিকা রেখেছে।<br><br>সৌদি মুখপাত্র<br><br>আরবি, ইংরেজি ও ফরাসী ভাষায় দক্ষ জেনারেল আসিরি, ইয়েমেনে সৌদি জোটের বোমা হামলার সমালোচনার জবাব দেয়ার সময় নিজের বাকপটুতায় সাংবাদিকদের মুগ্ধ করেন।<br><br>কিন্তু ২০১৭ সালের মার্চে লন্ডনে এক সফরের সময় বিক্ষোভকারীরা তাঁর বক্তব্যের সময় ডিম ছুড়ে মাররে নিজের মেজাজ হারিয়ে বসেন আসিরি।<br><br>ঐ ঘটনার একটি ভিডিওচিত্র থেকে দেখা যায় বিক্ষোভকারীদের ছুঁড়ে মারা ডিমের আঘাতে ক্ষিপ্ত হয়ে বিক্ষোভকারীদের প্রতি অসৌজন্যমূলক ইঙ্গিত করেন আসিরি।<br><br>এর কিছুদিন পরেই সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা 'জেনারেল ইন্টেলিজেন্স ডিরেক্টরেট' এর সহ-প্রধান নিযুক্ত হন।<br><br>সামরিক অভিজ্ঞতা<br><br>সৌদি গণমাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী, জেনারেল আসিরির জন্ম দক্ষিণ-পশ্চিম আরবের আসির প্রদেশের মুহাইলি নামক ছোট্ট একটি শহরে।<br><br>কিন্তু সৌদি সেনাবাহিনীতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একজন ব্যক্তি মনে করা হয় তাঁকে। তাঁর উত্থানের কারণ হিসেবে সেনাবাহিনীতে তাঁর অবদানকে মনে করা হয়।<br><br>যুক্তরাষ্ট্রের স্যান্ডহার্স্ট ও ওয়েস্ট পয়েন্ট এবং ফ্রান্সের সেন্ট. সাইরে'র মত মর্যাদাপূর্ণ পশ্চিমা মিলিটারি অ্যাকাডেমিতে প্রশিক্ষণ নেয়ার অভিজ্ঞতা রয়েছে মি. আসিরি'র।<br><br>অবশেষে পতন<br><br>জটিল কূটনীতিক সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে জেনারেল আসিরিকে দূরদর্শী ক্ষমতাসম্পন্ন এবং আস্থাশীল একজন কর্মকর্তা মনে করা হলেও জামাল খাসোগজি হত্যাকাণ্ডে তাঁর ভূমিকা নিয়ে রহস্য রয়ে গেছে।<br><br>মার্কিন পত্রিকা নিউ ইয়র্ক টাইমসের একটি সূত্রের বরাত দিয়ে জানানো হয়, সাংবাদিক জামাল খাসোগজিকে সৌদি আরবে জিজ্ঞাসাবদের উদ্দেশ্যে আটক করার জন্য যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের মৌখিক অনুমতি পান আসিরি।<br><br>শনিবার আসিরি'র চাকরিচ্যুতির খবর প্রকাশের আগে নিউ ইয়র্ক টাইমস জানায় সাংবাদিক জামাল খাসোগজির অন্তর্ধান ও হত্যার ঘটনায় প্রতিপত্তিশালী যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের ওপর থেকে অভিযোগের তীর সরাতে জেনারেল আসিরিকে দোষারোপ করার পরিকল্পনা করছে সৌদি আরব কর্তৃপক্ষ। and nbsp; </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540105570_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">নিজ দেশের নাগরিকদের কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, তেলের দরপতনের কারণে কর্মসংস্থান কমে যাওয়া, রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতাসহ নানা কারণে সংকুচিত হচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের শ্রমবাজার। এই বাজার সংকোচনের মূলে রয়েছে অর্থনৈতিক অস্থিরতা। কিন্তু মালয়েশিয়ায় বর্তমানে তেমন কোনও অর্থনৈতিক অস্থিরতা নেই। তারপরও সেখানে মধ্যপ্রাচ্যের মতো শ্রমিকদের ওপর অতিরিক্ত কর আরোপ করে নিজ দেশের মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করার উদ্যোগ বিদেশি শ্রমিকদের জন্য বাজার সংকোচনের ইঙ্গিত দিচ্ছে।<br>মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদিআরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন, জর্ডান, কুয়েত, লেবানন, ওমান, কাতার সব দেশেই শ্রমবাজারে চলছে মন্দাবস্থা। সৌদিআরবের নাগরিকদের মধ্যে বেকারত্বের হার কমিয়ে আনার লক্ষ্যে সৌদিকরণ শুরু করেছে সেদেশের সরকার। এরই অংশ হিসেবে প্রবাসী শ্রমিকদের নিয়োগকর্তার ওপর শ্রমিক প্রতি লেভি (এক ধরনের কর) আদায়ের সিদ্ধান্ত নেয় সৌদি সরকার। যার ফলশ্রুতিতে প্রায় ৭ লাখ প্রবাসী শ্রমিক সৌদিআরব ছেড়ে চলে যায় বলে সৌদি সরকারের প্রতিবেদনে বলা হয়। সৌদি সরকার এও বলেছে বিদেশি শ্রমিকদের জায়গায় যাতে স্থানীয়রা কাজের সুযোগ পায় সেই লক্ষ্যে এই করারোপ করা হয়েছে।<br>সৌদি সরকারের দেওয়া তথ্য মতে, সেদেশ ছেড়ে যাওয়া বেশিরভাগ বিদেশি শ্রমিক বিল্ডিং এবং স্থাপনা নির্মাণ কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিল এবং সিংহভাগই দক্ষিণ এশিয়ার। সৌদি সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী যে সব কোম্পানি বিদেশি শ্রমিক নিয়োগ করে তাদেরকে শ্রমিক প্রতি মাসিক ৩০০ সৌদি রিয়াল লেভি দিতে হবে এবং যারা স্থানীয় নাগরিকদের চেয়ে বিদেশি শ্রমিকের ওপর বেশি নির্ভরশীল তাদেরকে শ্রমিক প্রতি ৪০০ সৌদি রিয়াল লেভি দিতে হবে। সৌদি সরকার নির্ধারিত এই ফি বছর বছর বাড়বে বলেও জানান তারা। সৌদি বাদশা আবদুল্লাহ বিন সালমানের রূপকল্প অনুযায়ী ২০২০ সালের মধ্যে ১২ লাখ সৌদির কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।<br>সংযুক্ত আরব আমিরাতের পথ ধরেই সৌদি সরকার বিদেশি শ্রমিকদের লেভি ঘোষণা করেছে। সৌদি আরবের আগেই প্রবাসী শ্রমিকদের কাছ থেকে আবুধাবিতে বাড়ি ভাড়ার ওপর ৩ শতাংশ পৌর কর এবং দুবাইতে ৫ শতাংশ পৌর করের সিদ্ধান্ত নেয়। উল্লেখ্য, দালালচক্রের নানা অপতৎপরতা এবং উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাংলাদেশি শ্রমিক বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজে যুক্ত হয়ে পড়ায় ২০১২ সালে সংযুক্ত আরব আমিরাত বাংলাদেশ থেকে জনশক্তি নেওয়া বন্ধ করে দেয়। সৌদি আরবের পর সবচেয়ে বড় শ্রমবাজার ছিল আমিরাতের শ্রমবাজার। তবে এই বছর নতুন একটি চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্যে আমিরাত সরকার জানিয়েছে তারা ধাপে ধাপে এদেশে থেকে দক্ষ জনশক্তি নেবে।<br>২০১৩ সালের আরব আমিরাতের করা একটি গবেষণায় দেখা গেছে, কাতারের ৯৫ শতাংশ, আরব আমিরাতের ৯৪ শতাংশ, কুয়েতের ৮৩ শতাংশ, ওমানের ৭১ শতাংশ, বাহরাইনের ৬৪ শতাংশ এবং সৌদি আরবের ৪৯ শতাংশ শ্রমিক বিদেশি। গালফ কো-অপারেশন কাউন্সিল (জিসিসি) ভুক্ত দেশ সৌদি আরব, কাতার, কুয়েত, বাহরাইন,এবং ওমান এখন তাদের শ্রমখাতের উল্লেখযোগ্য অংশ জাতীয়করণের দিকে ঝুঁকছে। নিজ দেশের নাগরিকদের জন্য কাজের সুযোগ সৃষ্টির জন্যই মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো এ পদক্ষেপ নিয়েছে ও নিতে যাচ্ছে।<br>যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ক্রেডিট রেটিং এজেন্সি মুডি ১০ অক্টোবর একটি রিপোর্ট প্রকাশ করে বলেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো তাদের শ্রমবাজার জাতীয়করণের যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে তাতে সামাজিক লক্ষ্য অর্জন করতে পারলেও প্রাইভেট সেক্টরে প্রবাসী শ্রমিকদের অভিবাসন খরচ বাড়বে। এছাড়াও রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে যদি কোনও কারণে এই জাতীয়করণের প্রক্রিয়া ব্যর্থ হয় তাহলে সামাজিক এবং রাজনৈতিক অস্থিরতা বাড়বে।<br>অন্যদিকে, মালয়েশিয়া সরকারও চাচ্ছে প্রবাসী শ্রমিকদের ওপর থেকে নির্ভরতা কমিয়ে এনে স্থানীয়দের জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করতে। এজন্য প্রবাসী শ্রমিক নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে শ্রমিক প্রতি ১০ হাজার মালয়েশিয়ান রিঙ্গিত লেভি দেওয়া বাধ্যতামূলক করেছে। তবে যারা এই পরিমাণ অর্থ দিতে আগ্রহী নয় তাদের জন্য রয়েছে অন্য সুযোগ। এক্ষেত্রে মালয়েশিয়ান নিয়োগকর্তা তার একই শ্রমিককে পুনরায় নিয়োগ ( রি- হায়ারিং) করতে চাইলে ছয় মাস অপেক্ষা করতে হবে এবং সেই শ্রমিক দেশে ফেরত যেতে পারবেন। কিন্তু ওই শ্রমিককে পুনর্নিয়োগের জন্যও দিতে হবে ১ হাজার ৮০০ রিঙ্গিত চার্জ।<br>মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী এম কুলাসেগেরানি এ বিষয়ে গণমাধ্যমকে বলেন, ‘‘ শ্রমিক পুনর্নিয়োগের ক্ষেত্রে একটি ‘কুলিং পিরিয়ড’ এর ব্যবস্থা করা হবে। নিয়োগ কর্তাদের ছয় মাস অপেক্ষা করতে হবে যদি তারা একই শ্রমিককে পুনরায় নিয়োগ দিতে চান। যখন নিয়োগ কর্তারা আমাদের কাছে এসে বলেছিলেন যে, তাদের শ্রমিকদের বৈধতা আরও ১০ বছর বাড়াতে চান, তখন আমরা বলেছি আমরা অবশ্যই বাড়াবো কিন্ত এজন্য ১০ হাজার রিঙ্গিত ফি দিতে হবে এবং এটাই প্রক্রিয়া। তবে এখন তারা যেসব শ্রমিককে ফেরত পাঠাতে চাচ্ছেন তাতেও আমাদের কোনও সমস্যা নেই। তারা পাঠাতে পারেন। এসব শ্রমিককে নিয়োগ কর্তারা পুনরায় নিয়োগ দিতে চাইলে আবেদনপত্রের সঙ্গে ১ হাজার ৮০০ রিঙ্গিত পরিশোধ করতে হবে।’’<br>কুলাসেগেরান আরও জানান, নিয়োগ কর্তাদের ওপর পুরো ফি বাধ্যতামূলক করা হয়েছে যাতে তারা বিদেশি শ্রমিকের চেয়ে স্থানীয়দের নিয়োগে প্রাধান্য দেয়।<br>এদিকে সম্প্রতি মানবসম্পদবিষয়ক উপমন্ত্রী মাহফুজ উমর বলেছেন, বিদেশি শ্রমিকদের ওপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে আনতে পদক্ষেপ নিচ্ছে মালয়েশিয়ার সরকার। এ লক্ষ্যে কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ এবং পরিশ্রমী দেশীয় কর্মীদের সংখ্যা বৃদ্ধি করবে তারা। বিদেশি শ্রমিকের ওপর নির্ভরশীলতা কমানো মালয়েশিয়ার অনেক দিনের একটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য। এ কারণেই আমরা খুব শীঘ্রই দেশীয় কর্মীদের দক্ষ করে তুলতে প্রশিক্ষণের কাজ শুরু করবো।<br>তবে অভিবাসন বিশেষজ্ঞরা মধ্যপ্রাচ্যের বাজার সংকুচিত হওয়ার কথা বললেও মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার সংকুচিত হবে না বলে ধারণা করছে। পাশাপাশি মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারে যে নিয়মতান্ত্রিক সংকট আছে সেগুলো দূর করার পরামর্শ দিয়েছেন।<br>ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রামের প্রধান শরিফুল হাসান বলেন, মালয়েশিয়ার শ্রম বাজারটিকে সুশৃঙ্খল অবস্থায় আনায় বেশি জরুরি। কারণ, যেই সমস্যাগুলো আছে মালয়েশিয়ার বাজারে তাতে শুধু সংকুচিত হয়ে আসা নয়, দুর্নামটাও হবে আমাদের। মালয়েশিয়ার শ্রম বাজার নিয়ে দুর্নীতি সেদেশের সঙ্গে বাংলাদেশেও হচ্ছে। আগে যে পরিমাণ লোক মালয়েশিয়ায় যেত, বর্তমানে কিন্তু যাচ্ছে না। মালয়েশিয়ার ক্ষেত্রে দেখা যায় যেই পরিমাণ বৈধ শ্রমিক থাকে,ঠিক একই পরিমাণ অবৈধ লোক পাওয়া যায়। এই বিপুল পরিমাণ অবৈধ লোক থাকার ফলে যেটা হয় তা হলো ঐ অবৈধ লোকগুলোকে কাজে নেয় নিয়োগকর্তারা কম বেতনে। এজন্য আবার বৈধরা কাজের সুযোগ পায় না। সবসময় একটি অসামঞ্জস্য পরিস্থিতি বিরাজ করে। তাই আমাদের এই বাজারের সংকটগুলোকে একটি শৃঙ্খলায় ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে কাজ করতে হবে।<br>রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্ট রিসার্চ ইউনিটের (রামরু) গবেষক এবং অভিবাসন বিশ্লেষক ড. জালাল উদ্দিন সিকদার বলেন, মালয়েশিয়ার বাজার ছোট হয়ে আসার সম্ভাবনা নেই। কারণ মালয়েশিয়ার অর্থনীতি ম্যানুফ্যাকচারিং এবং কৃষি খাতে নির্ভরশীল। ১৯৯৭ সালে তাদের যে অর্থনীতির মন্দা হয়েছিল যাকে বলা হয় এশিয়ান ইকোনমিক ক্রাইসিস। এতে মালয়েশিয়া , সিঙ্গাপুর, তাইওয়ান, হংকং এরা প্রতিকূল অবস্থায় খুব লড়াই করেছিল। তখন তাদের জনগণ টাকা পয়সা দিয়ে, স্বর্ণ বিক্রি করে এর থেকে বেরিয়ে এসেছিল। মালয়েশিয়া ম্যানুফেকচারিং সাইডকে বাদ দিয়ে কৃষি খাতে প্রচুর বিনিয়োগের কারণে এরকম ক্রাইসিসে পড়েছিল।<br>ড. জালাল আরও বলেন, এখনও বিশ্বে অর্থনৈতিক মন্দা চলছে, তাই এই সময়ে ম্যানুফেকচারিং খাত থেকে তারা আবার কৃষি খাতে পুরোপুরি নির্ভরশীল হওয়ার জন্য তাদের স্থানীয় জনগণ প্রস্তুত কিনা এটা একটা প্রশ্ন। সৌদি আরবে যেটা হয়েছে প্রচুর পরিমাণে শরণার্থী এসেছে মধ্যপ্রাচ্যের অন্যান্য দেশ থেকে। যার কারণে তারা বলছে তাদের স্থানীয় লোকজনকে চাকরি দেবে। কিন্তু সৌদি সরকার প্রণোদনা দিয়েও অভিবাসী শ্রমিকের বিকল্প শ্রমিক পাচ্ছে না। যার কারণে সৌদিরা ইয়েমেনের শরণার্থী ও ইয়েমেন থেকে সুন্নিপন্থী যারা দেশটিতে ভিড় করছে তাদের দিয়ে কাজ করাতে চাচ্ছে। এই জিনিসটা কিন্তু আবার মালয়েশিয়ার ক্ষেত্রে সম্ভব না। মালয়েশিয়া যেটা করতে পারে তা হলো রোহিঙ্গাদের তারা নিতে পারে, যেহেতু প্রেসিডেন্ট মাহাথির মোহাম্মদের একটি দুর্বলতা আছে। কিন্তু তার সংখ্যাই বা কতো? মালয়েশিয়ার যেই পরিমাণ শ্রমিক দরকার সেটা এই মুহূর্তে বাংলাদেশ ছাড়া আর কেউ দিতে পারবে না।<br><br>অন্যদিকে, মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার নিয়ে আশাবাদের কথা ব্যক্ত করেছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়। সম্প্রতি একটি প্রতিনিধি দল মালয়েশিয়া থেকে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের মিটিং করে এসেছে। সেই প্রতিনিধি দলের সদস্য এবং মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (কর্মসংস্থান)ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেন, মধ্যপ্রাচ্যের বাজার ছোট হতে পারে, তবে মালয়েশিয়ার বাজার ছোট হওয়ার সম্ভাবনা নেই। আমরা যখন মিটিং করেছি তাদের সঙ্গে কথা বলে বোঝা গেছে তাদের শ্রমিক প্রয়োজন। মালয়েশিয়ার ভবিষ্যৎ উন্নয়নের কথা চিন্তা করে এবং তাদের নিজস্ব জনশক্তির যে ঘাটতি আছে, তাতে আমাদের লোকদের তাদের দরকার হবে। তাই সেখানে হঠাৎ করে সংকুচিত হওয়ার কোনও কারণ নেই। </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540103434_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">কক্সবাজার-ঢাকা-কক্সবাজার, অসাধু বাস চালকদের কাছে এটি একটি লোভনীয় রুট। কারণ ইয়াবা আর কাঁচা টাকা। দেশের সকল নামিদামি ও বিলাসবহুল পরিবহনের চালকরা এই রুটে গাড়ি চালাতে চান। তারা সন্দেহের ঊর্ধ্বে থেকে রাজধানীতে নিয়ে আসেন ইয়াবা। চালান সরবরাহের বিনিময় পান মোটা অংকের টাকা। গাড়িচালক পেশাকে সামনে রেখে এভাবেই মাদক সম্রাটদের সঙ্গে গড়ে উঠছে তাদের সখ্যতা। এভাবেই রাজধানীতে ঢুকছে ইয়াবার চালান। প্রায়ই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে গ্রেফতার হচ্ছে, হানিফ, শ্যামলী ও সোহাগ পরিবহনের কক্সবাজার, চট্টগ্রাম ও ঢাকা রুটের চালকরা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা এসব পরিবহন কোম্পানির মালিকদের চালক নিয়োগের বিষয় আরও সতর্ক হওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন।<br><br>দূরপাল্লার পরিবহন সোহাগ স্ক্যানিয়া গাড়ির চালক হওয়ার সুবাদে হরহামেশা আনিছুল হক ওরফে দুলাল এই রুটে গাড়ি চালানোর দায়িত্ব পেতেন। গাড়ি চালানোর পেশাটি তার দীর্ঘদিনের। তবে রাতারাতি ধনী হবার নেশায় মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে হাত মেলান। কক্সবাজার থেকে ইয়াবার চালান নিয়ে ঢাকায় পৌঁছে দিয়েই মোটা অঙ্কের টাকা পেতেন দুলাল। শনিবার (২০ অক্টোবর) সকাল ৭টার দিকে রাজধানীর মালিবাগ ডিআইটি রোডের নবাবী খানাপিনা রেঁস্তোরার সামনে থেকে ২০ হাজার পিছ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-২। দুলাল খুলনার খালিশপুর থানার দক্ষিণ কাশিপুর গ্রামের আব্দুল আজিজ খাঁনের ছেলে।<br><br>র‌্যাব সূত্র জানায়, গ্রেফতার দুলাল জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, অভিজাত গাড়ির চালক হিসাবে লোকচক্ষুর অন্তরালে খুব সহজেই ইয়াবা ট্যাবলেট পাচার করা যায়। এই চালানটি সরবরাহের জন্য তাকে ৮০ হাজার টাকা দেওয়া হতো। এই লোভেই তিনি চালানটি কক্সবাজার থেকে ঢাকায় নিয়ে আসেন। এর আগেও তিনি বেশ কয়েকটি বড় বড় ইয়াবার চালান ঢাকায় নিয়ে এসেছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি।<br><br>র‌্যাব-২ এর অধিনায়ক (সিও) লে. কর্নেল মো. আনোয়ার উজ জামান জানান, গ্রেফতার দুলাল সোহাগ স্ক্যানিয়া গাড়ির চালক। ২০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট সে তার সঙ্গে থাকা ব্যাগের মধ্যে করে ঢাকায় নিয়ে এসেছিল। পরিবহন থেকে নেমে মাদকের চালানটি সরবরাহ করার সময় তাকে আটক করা হয়।<br><br>তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমরা সোহাগ পরিবহন মালিকের সঙ্গেও যোগাযোগ করেছি। তারা এই মাদক পাচারের বিষয়ে কিছুই জানতেন না। সেজন্য আমার ওই বাসটি জব্দ না করে শুধু চালক দুলালকে গ্রেফতার করি।<br><br>শুধু দুলালই নয়, বেশকিছু পরিবহন চালককে ব্যবহার করে মাদক ব্যবসায়ীরা দেশের এক স্থান থেকে অন্যস্থানে ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদক পাচারের কাজ করছে বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। এক্ষেত্রে শুধু দূরপাল্লার বাস নয়, পণ্যবাহী ট্রাক, দামি প্রাইভেটকারসহ জ্বালানি তেল পরিবহনের ট্রাকও ব্যবহার করছে মাদক ব্যবসায়ীরা।<br><br>র‌্যাব সদর দফতর থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে, ২০০৪ সালে এলিট ফোর্স র‌্যাব প্রতিষ্ঠার পর থেকে ২০১৮ সালের অক্টোবর পর্যন্ত ১৪ বছরে দেশের বিভিন্ন স্থানে চেকপোস্ট বসিয়ে দূরপাল্লার যানবাহন তল্লাশি করে মাদকদ্রব্য উদ্ধারসহ ৪৪ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এসব যানবাহন থেকে ৪ লাখ ২ হাজার ৬৮০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, এক হাজার ১৯৪ বোতল ফেনসিডিল, ১৯ কেজি গাঁজা ও ২ কেজি হেরোইন উদ্ধার করা হয়। এছাড়াও মাদক পাচারে সহায়তার দায়ে বিলাশবহুল মোট ২০টি গাড়ি জব্দ করে র‌্যাব।<br><br>জব্দ হওয়া তালিকায় রয়েছে- শ্যামলী পরিবহনের ৫টি বাস, হানিফ পরিবহনের ২টি বাস, গ্রীন লাইন পরিবহনের ২টি বাস, তোবা লাইন এলিট পরিবহনের ২টি বাস, সৌদিয়া পরিহনের ২টি বাস, দেশ ট্রাভেলস পরিবহনের ২টি বাস, সালমা এন্টারপ্রাইজের ১টি বাস, শিশির পরিবহনের ১টি বাস, আব্দুল্লাহ এন্টারপ্রাইজের ১টি বাস ও অন্যান্য দুটি পরিবহনের বাস।<br><br>এদিকে, দূরপাল্লার যানবাহনে মাদক পাচারকালে ২০১১ সালে একজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ও একটি বাস জব্দ করা হয়; ২০১৬ সালে সাত জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার ও তিনটি বাস জব্দ; ২০১৭ সালে ২১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার ও ৯টি দূরপাল্লার বাস জব্দ করা হয়। এদিকে, চলতি বছরের (২০১৮ সাল) আগস্ট পর্যন্ত দূরপাল্লার যানবাহনে অভিযান চালিয়ে ১৫ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার ও সাতটি বিলাসবহুল বাস জব্দ করে র‌্যাব।<br><br>র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার মোহাম্মদ মুফতি মাহমুদ খান বলেন, ‘মাদক পাচার রোধে দূরপাল্লার বিভিন্ন বাসে আমাদের তল্লাশি অব্যাহত রয়েছে। মাদকের চালান পাওয়া গেলেই পাচারকারী ও ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হচ্ছে।’<br><br>তিনি আরও বলেন, ‘কেউ যাতে দূরপাল্লার এসব পরিবহনে মাদকদ্রব্য বহন করতে না পারে, সে বিষয়ে বাস মালিক, চালক ও হেলপারদের সতর্ক থাকতে হবে। তাদেরও নজরদারি থাকতে হবে।’<br><br>র‌্যাব-১০ এর অভিযানে গত ১৯ জুলাই সকালে রাজধানীর ওয়ারী থানা এলাকা থেকে তোবা লাইন (ঢাকা মেট্রো-গ ১৫-৩৩৯৮) বাসে তল্লাশি করে ৪৩ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়।<br><br>র‌্যাব ৩ এর অভিযানে গত ২৫ জুন সকালে রাজধানীর সায়েদাবাদ জনপদের মোড়ের সামনে থেকে কক্সবাজার থেকে আসা শ্যামলী পরিবহনের (ঢাকা মেট্টো-ব-১৪-৪৮০৭) দুই যাত্রীকে সাত হাজার পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার করা হয়। মাত্র ৩ হাজার টাকার বিনিময়ে এই চালানটি নিয়ে এসেছিলেন তারা।<br><br>র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক (সিও) লে. কর্নেল মো. এমরানুল হাসান বলেন, ‘দূরপাল্লার পরিবহনে মাদক পাচার রোধে আমরা কাজ করছি। দূরপাল্লার গাড়িগুলো কোথা থেকে ছাড়া হয় এবং কোথায় গিয়ে থামে, এসব স্থানে পরিবহন সেক্টরের ব্যবস্থাপকরা যাতে নজর রাখে তার জন্য র‌্যাবের পক্ষ থেকে বেশকিছু পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।’<br><br>এছাড়াও বাস টার্মিনালগুলোতে কি হয় সেটি নজরদারির জন্য টার্মিনালগুলোকে সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় রাখার কথা বলেন এ র‌্যাব কর্মকর্তা। দূরপাল্লার পরিবহনে মাদক পাচাররোধে বাস মালিকদের নজরদারি বাড়াতে ও বাস মালিকরা যাতে সচেতন হন সে বিষয়ে তিনি দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।<br><br>এ বিষয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্লাহ বলেন, ‘যারা মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক পাচারের সঙ্গে জড়িত থাকবে তাদের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবে, এটা আমরাও চাই। কারণ তারা দেশের শত্রু, জাতির শত্রু। দূরপাল্লার বাসে কেউ যাতে মাদক পরিবহন করতে না পারে সে জন্য আমরাও নজরদারি করছি।’ </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540102856_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে দেশ। দেশের প্রবৃদ্ধি আজ সাতের কোটা ছাড়িয়ে গেছে । উন্নয়নের প্রবল স্রোতে গণতন্ত্র নির্বাক। গণতন্ত্র আসলে একটা মুখরোচক শব্দ । পৃথিবীর কোথাও জনগণের শাসন নাই। and nbsp; আমরা সবাই কথায় কথায় বলি দেশে গণতন্ত্র নাই। স্বাধীনতার ৪৭ বছর পরও গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে ব্যর্থ হয়েছে পূর্বের প্রতিটি সরকার ও রাষ্ট্র। <br> and nbsp; খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতাব্দীর প্রথম দিকে গণতন্ত্রের সূচনা বাঁশি বাজে। তবে আধুনিক গণতন্ত্রের আবির্ভাব ঘটে আঠার শতকে। পৃথিবীতে গণতান্ত্রিক দেশ ১২২টি। and nbsp; পূর্ণ গণতান্ত্রিক দেশ ১৯ টি, and nbsp; হাইব্রীড ৫৭ টি, and nbsp; বাকী গুলো নামে গণতান্ত্রিক। আর এই ১৯টি পূর্ণ গণতান্ত্রিক দেশের তালিকায় নেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রর নাম। অথচ ১৯টি দেশের সবকটিই আবার ইউরোপ মহাদেশের। সম্প্রতি ব্রিটিশ সাপ্তাহিক ফরম্যাটের সংবাদপত্র দ্য ইকোনোমিস্ট এর ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (ইআইইউ) এর বার্ষিক ডেমোক্রেসি সুচক বা গণতন্ত্র সুচক-এর সর্বশেষ সংস্করনে এমনই চিত্র দেখা গেছে। আরও and nbsp; বলা হয়েছে, বিশ্বের মোট জনসংখ্যার মাত্র ৪.৫% পূর্ণ গণতন্ত্রের অধীনে বাস করেন। আর ৪৪.৮% মানুষ হাইব্রীড গণতন্ত্রের অধীনে বাস করেন। <br><br>গণতন্ত্র শব্দটি গ্রীক শব্দ “ডেমোক্রেসিয়া” থেকে উৎপত্তি হয়েছে। গণতন্ত্রের পুঁথিগত সংজ্ঞা হচ্ছে, কোনো জাতি বা রাষ্ট্রের এমন একটি ব্যবস্থা যা প্রত্যেক নাগরিকের নীতি নির্ধারণ বা সরকারি প্রতিনিধি নির্বাচনের সময় সমান ভোট বা অধিকার আছে। আমার পরিভাষায় গণতন্ত্র এমন একটি তন্ত্র যে তন্ত্রে ভোটের পূর্বে সমস্ত অধিকার দেওয়া হয়, নির্বাচিত হওয়ার পর ভোটারদের দেয়া সকল প্রতিশ্রুতি ভুলে যাওয়ার অধিকারও দেওয়া হয় ।<br><br>বাংলাদেশে সংসদীয় বহুদলীয় গণতন্ত্র বিরাজমান। গণতন্ত্রের আইকন হল ভারত। ভারতে গণতন্ত্রের যাঁতা কলে পিষ্ট হয়ে ক্ষুদা আর ঋণের জ্বালায় গত ২০ বছরে ৩ লাখ কৃষক আত্বহত্যা করেছে। যদিও বাংলাদেশে এরকম ঘটনা বিরল। and nbsp; এদেশের গণতন্ত্রকে যে দল গুলো বিবর্ণ ও বিবস্ত্র করেছে তারাও আজ গণতন্ত্রের শুভাকাঙ্খী। <br><br>বাংলাদেশ বিশ্বের ৮৫ তম গণতান্ত্রিক দেশ। স্বাধীনতা যেমন ত্যাগ ও রক্ত ছাড়া আসেনি, and nbsp; গণতন্ত্রও তেমনি রাজপথ রক্তাক্ত করে এসেছে। দেশ স্বাধীন হলো অনেক যুগ হয়ে গেল কিন্তু গণতন্ত্র আজও অপরিপক্ব ও অবহেলিত। মাঝে মধ্যে আই সি ইউ তে রাখা হয়। ৭৫-এ জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বিভিন্ন সামরিক শাসক দেশটাকে চালিয়েছে সামরিক কায়দায়। আশি শতকের প্রথম দিকে সুনামি আঘাত আনে গণতন্ত্রের উপর। সামরিক শাসকরা গণতন্ত্রের কণ্ঠ রোধ করলো। তারা গণতন্ত্রের রক্ত চুষে দেশ চালালেন, সামরিক লেবাসে।<br><br>১৯৮৩ সালে মজিদ খানের শিক্ষানীতি বাতিল ও সামরিক স্বৈরশাসক এরশাদের বিরুদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা বিক্ষোভ করে। স্বৈরশাসকের মদদপুষ্ট পুলিশের গুলিতে জাফর, দিপালী, ডা. মিলন, জয়লালের তাজা রক্তে রাজপথ রঞ্জিত হয়েছিল । গণতন্ত্রের জন্য সমস্ত শরীরটা ক্যাম্পাস বানিয়ে শহীদ হয়েছিলেন and nbsp; নুর হোসেন। স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে আমার সক্রিয় ভূমিকা ছিল। স্বৈরশাসকের পেটুয়া বাহিনীর নির্মম আঘাতে বার বার আমি রক্তাক্ত হয়েছিলাম। যে আঘাতের চিহ্ন এখনও আমার শরীরে বিভিন্ন অংশে দৃশ্যমান। আর সেই স্বৈরশাসক যখন বলেন দেশে গণতন্ত্র নেই, তখন নিজেকে অপদার্থ বলে মনে হয়।<br>গণতান্ত্রিক ভাবে বলতে হয় দেশে যথেষ্ট উন্নয় হয়েছে। স্বাধীনতার পর দেশের সমস্ত উন্নয় ও প্রাপ্তিকে এক পাল্লায় and nbsp; রাখলে, আর বর্তমানে and nbsp; আওয়ামীলীগ সরকারের ১০ বছরের and nbsp; উন্নয়ন ও প্রাপ্তিকে এক পাল্লায় রাখলে, and nbsp; সময়ের ব্যবধানে হোক আর অর্থের ব্যবধানে হোক আওয়ামীলীগের পাল্লা ভারী হবেই।আওয়ামীলীগ সরকারের আন্তর্জাতিক প্রাপ্তিও অনেক। ৬৮ বছর ধরে পরে থাকা অমীমাংসীত and nbsp; ছিটমহলের বিশ্বময় গ্রহনযোগ্য সমাধান, আন্তর্জাতিক আদালত থেকে সমুদ্রসীমা আদায়।বিশ্ব মড়লদেরকে উপেক্ষা করে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ, and nbsp; দেশকে মধ্য আয়ের দেশে পরিণত and nbsp; করা, and nbsp; এটাকে আমি বলবো দেশের জনগণের অবদান। যে গণতন্ত্র দেশের উন্নয় ও অগ্রগতিকে বিশ্বাস করেনা, সে গণতন্ত্র দিয়ে দেশের সরকার পরিবর্তন ছাড়া কিছুই সম্ভব না। <br>তাহলে কথা বলি গণতন্ত্রের সাথে। ৭৫ এর পর যে সব দল রাষ্ট্র পরিচালনা করেছিলেন তারা কতটুকু গণতান্ত্রিক ছিলেন? তাঁরা কতটুকু গণতান্ত্রিক ভাবে রাষ্ট্রের মহানায়ক হয়েছেন? তাঁদের দলের উৎপত্তি কি গণতান্ত্রিক ভাবে? সব প্রশ্নের উওর না হবে, and nbsp; বাকীটা ইতিহাস সাক্ষী। দেশে গণতন্ত্র নাই এটা অগণতান্ত্রিক কথা। and nbsp; গণতান্ত্রিক কথা হলো বর্তমানে গণতন্ত্র টাকার মতো অবমূল্যায়ন and nbsp; হচ্ছে না। বিএনপি, জাতীয় পার্টি দেশে গণতন্ত্র নাই বলে গলাবাজি করে। অথচ এই দলগুলোই গণতন্ত্রকে গলা কেটেছে and nbsp; তাঁদের সুবিধার জন্য। আর এই গণতন্ত্রকে জল্লাদদের হাত থেকে রক্ষা করতে রাজপথ রক্তে লাল করেছে এ দেশের জনগণ। কেউ গণতন্ত্রকে হিজড়া বানিয়ে আবার কেউ বন্দুকের নলের ভয় দেখিয়ে গণতন্ত্রের বস্রহরণ করে। স্বৈরশাসকের রক্তচক্ষু আমি দেখেছি, দেখেছি নিষ্ঠুর নির্যাতনের রক্তমাখা শরীর, আমি উপভোগ করেছি নির্মম কারা নির্যাতন। তারই বলেন দেশে গণতন্ত্র নাই! <br>যদিও বিশ্বের কোন রাষ্ট্রই গণতন্ত্রের পূর্ণ দিতে পারেনি। আমি গণতন্ত্রের সঠিক পরিচর্যার পক্ষে। আগে রাজনেতিক দল গুলোর মধ্যে and nbsp; একে অপরের প্রতি আস্হার জায়গা শক্ত করতে হবে। জয়ী হলেই নির্বাচন সুষ্ঠু আর পরাজিত হলেই ভোট ডাকাতি এই সংস্কৃতি থেকে প্রতিটি রাজনেতিক দলকে বেড়িয়ে আসতে হবে। এর জন্য দরকার প্রতিটি দলের মধ্যে and nbsp; প্রকৃত গণতন্ত্র। দেশে বড় দুয়েকটা দল ছাড়া অন্যরা ৪ বছরের জন্য গণতন্ত্রের গ পর্যন্ত ভুলে যান। যখন নির্বাচনের বেশ কয়েক মাস আগে গণতন্ত্রের জন্য মায়া কান্না শুরু করে দেন। গণতন্ত্র একটা চলমান প্রক্রিয়া। জনগণকে গণতন্ত্রের মর্ম বুঝাতে ব্যর্থ হলে, গণতন্ত্রের বারটা বাজবে। তখন অর্থের কাছে বিক্রি হবে কষ্টার্জিত গণতন্ত্র। <br>সামনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন তাই যেমন গণতন্ত্রের and nbsp; দরদ বেড়েছে, and nbsp; তেমনি দরদ বেড়েছে দেশের ছোট ছোট রাজনেতিক দলরেও। দলের নিবন্ধন আছে কিংবা নাই, দলের নিজস্ব ভোট ব্যাংক আছে কিংবা নাই এটা চিন্তার বিষয় না। চিন্তার বিষয় হলো জোট করে ক্ষমতার স্বাদ গ্রহন করা। আমাদের দেশে একটা প্রবাদ আছে and nbsp; " এত লালি আধজের না " জনবিছিন্ন কোন দল বা ব্যক্তি দিয়ে এক্য হলে, জাতি মতৈক্য ছাড়া আর কিছুই দেখবেনা। <br>গণতন্ত্রে সুফল / কুফল দুটোই আছে। আর গণতন্ত্র মানে শুধু ভোটের অধিকার না, and nbsp; ভাতের ও অধিকার। গণতন্ত্র মানে দেশের সার্বভৌমত্বকে রক্ষার অধিকার। গণতন্ত্র দেশের মানুষের মৌলিক অধিকারকে প্রতিষ্ঠিত and nbsp; করবে । গণতন্ত্রের মানবিক দৃষ্টিকোণ থাকবে অবহেলিত জনগোষ্ঠীর পক্ষে।<br>বর্তমান সরকার একাদশ জাতীর সংসদ নির্বাচনে প্রমাণ করতে হবে, উন্নয়ন ও গণতন্ত্র দুটোই আমার কাছে সমান। দেশে নির্বাচনকালীন সরকার সকল দলের সমন্বয়ে গঠন করতে হবে। দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন উপহার দেওয়া নির্বাচন কমিশনের যেমন নৈতিক দায়িত্ব তেমনি নির্বাচনকালীন সরকারেও। <br><div>দেশ থেকে আজ and nbsp; অভাব, অনটন, আকাল, and nbsp; সবচেয়ে অশুভ শব্দ মঙ্গা উন্নয়নের ছোঁয়ায় বিতাড়িত হয়েছে। জঙ্গিবাদের মতো কঠিন চ্যালেঞ্জ and nbsp; মোকাবেলা করে, and nbsp; আওয়ামীলীগ সরকার মাথা পিছু ঋণের পরিমান কমিয়ে দেশেকে আজ and nbsp; বিশ্বের মধ্য আয়ের দেশের কাতারে and nbsp; নিয়ে গেছে। আমাদের দেশের অর্থনীতির সূচক ভারত, পাকিস্তানের চেয়েও উপরে। তারপরও যদি আওয়ামীলীগ সরকারকে জনগণ ভোট না দেয়, তাহলে বুঝতে হবে গণতন্ত্র অর্থনীতি বুঝেনা। অন্যদিকে হতে পারে আওয়ামীলীগ তাদের সরকারের উন্নয়নের বার্তা ভোটারদের কাছে পোঁছাতে পারেনি অথবা জনগণের হার্টবিট বুঝতে পারেনি সরকার। <br></div><div><br></div>সাইদুর রহমান: লেখক ও কলামিস্ট </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540031047_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">মিরপুর ও কাফরুলের কিছু অংশ নিয়ে ঢাকা ১৫ আসন। আমি মিরপুর কাফরুলের মাটি ও মানুষের সাথে সেই শৈশব, কৈশোর ও যৌবন হতে আছি আগামীতেও থাকবো। আমি আওয়ামী পরিবারের তৃনমূলের সৈনিক। আমার বাবা হাবিবুল্লাহ মাতবর, অত্র এলাকার একজন আওয়ামী সৈনিক। এক সময় অত্র এলাকায় আওয়ামীলীগের সকল মিটিংগুলি ফুফা ও শ্বশুর শামসুদ্দিন মোল্লা'র বাসাতেই হতো। আমি ঢাকা মহানগর উত্তরের ছাত্রলীগের সভাপতি। পরবর্তীতে কেন্দ্রিয় কমিটির সহ-সভাপতির দ্বায়িত্ব পালন করেছি। একসময় আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও আওয়ামীলীগ উপ কমিটির সহ-সম্পাদক হিসাবে দ্বায়িত্ব পালন করেছি। বর্তমানে আমি ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছি।<br>আমি তৃনমূল হতে বেড়ে উঠা একজন আওয়ামী সৈনিক। জাতির জনকের আদর্শ বুকে লালন করে জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় আমি পথ চলছি। কৈশোর হতেই আমি জনগনের সাথে থাকতে পছন্দ করি আজও জনগনকে সাথে নিয়েই আছি। ১৯৮৬ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত রাজনৈতিক পথ পরিক্রমায় স্বৈরাচার হটাও দেশ বাচাও আন্দোলনে রাজপথ কাঁপিয়েছি। পুলিশের লাঠির আঘাতে রাজপথ রক্তাক্ত করেছি। ১৯৯১ হতে ১৯৯৬ সালে বিএনপির শাসনামলে ১৪৪ ধারা ভঙ্গের কারনে পুলিশের রাবার বুলেটের আঘাতও সহ্য করতে হয়েছে। যার ক্ষত আজও বয়ে বেড়াতে হচ্ছে আমাকে। এভাবেই নিজের রাজনৈতিক আন্দোলনের বর্ণনা দিলেন এম সাইফুল্লাহ সাইফুল।<br>সরোজমিনে দেখা যায়, ঢাকা-১৫ আসনের আনাচে কানাচে সব জায়গায় আওয়ামীলীগের উন্নয়ন চিত্র, বিভিন্ন ব্যনার ফেষ্টুনে শোভা পাচ্ছে। আওয়ামীলীগ সরকারের গত দুই শাসনামলে শেখ হাসিনা কর্তৃক গৃহীত ও বাস্তবায়িত উন্নয়ন যেন ঘরে ঘরে পৌছে দেয়ার চেষ্টা করছেন সাইফুল্লাহ সাইফুল। <br><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540031063_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">এ প্রসঙ্গে সাইফুল্লাহ সাইফুল বলেন, নেত্রী দেশের জনগনকে আওয়ামীলীগ কর্তৃক গৃহীত ও বাস্তবায়িত সকল উন্নয়ন কর্মসূচীকে সকলের কাছে পৌছে দিতে বলেছেন। দেশনেত্রী বলেছেন, নৌকার প্রচার করো সবাই। আমি দেশনেত্রীর একজন কর্মী হিসাবে সেই কাজটি করছি। <br>আগামীতে ঢাকা-১৫ আসনে নৌকার মাঝি হিসাবে নিজেকে যোগ্য মনে করেন কিনা এ প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, প্রত্যেক আওয়ামীলীগ কর্মীর রাজনৈতিক যোগ্যতা মূল্যায়নের দায়িত্ব জননেত্রী শেখ হাসিনার। তিনিই একমাত্র নির্ধারন করবেন আওয়ামীলীগের কোন কর্মী আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতিক বহনের গুরুদায়িত্ব পালনে সক্ষম। তবে আমার রাজনৈতিক শ্রম, কর্মসূচীর সঠিক বাস্তবায়ন, নেত্রীর প্রতি আনুগত্যকে সামনে রেখে নেত্রী যদি আমাকে ঢাকা-১৫ আসনের নৌকার মাঝি হিসাবে মনোনীত করেন তাহলে আমি ও এলাকার জনগন নেত্রীর সিদ্ধান্তর প্রতি সন্মান রেখে তাকে বিপুল ভোটে জয়ী করে এ আসন তাকে উপহার দেবে ইনসাল্লাহ।<br>সাইফুল্লাহ সাইফুল তার আগামী পরিকল্পনা সম্পর্কে বলেন, আমি প্রথমেই শিক্ষা খাতে উন্নয়নে মনোনিবেশ করবো। এলাকার ঝরে পড়া অসহায় শিশুদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করার জন্য কার্যকারী ও বাস্তবমূখী ব্যবস্থা গ্রহন করবো। শিক্ষার পাশাপাশি শিশুর মনোবিকাশে খেলার মাঠের ব্যবস্থা করবো। কারিগরী শিক্ষার মাধ্যমে স্বল্প শিক্ষিতদের উন্নত জীবনের নিশ্চয়তায় জননেত্রী শেখ হাসিনার গ্রহনকৃত বাস্তাবমূখী প্রকল্পগুলির সঠিক ও কার্যকরী বাস্তবায়ন সু-নিশ্চিত করবো। মাদক নিয়ন্ত্রনে কার্যকারী ব্যবস্থা গ্রহন করবো। বয়স্কদের সাথে নিয়ে তাদের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে এলাকার ছোট বড় সকল উন্নয়নের বাস্তবমূখী পরিকল্পনা গ্রহন ও তার সঠিক বাস্তবায়ন করবো। নারী উন্নয়নে কাজ করবো।<br>যদি আমাকে মনোনোয়ন না দেয় তার পরও আমি বলবো, পেশায় আমি একজন ব্যবসায়ী হলেও আমি আওয়ামীলীগের একজন কর্মী। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের আদর্শ and nbsp; ও জননেত্রী শেখ হাসিনার দিক নির্দেশনায় পরিচালিত একজন আওয়ামী কর্মী। জননেত্রী আমাকে যখন যে দায়িত্ব পালন করতে বলবেন আমি যেকোন অবস্থায় সে দায়িত্ব পালনে প্রস্তুত। </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540030902_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নের আশায় সুনামগঞ্জ-১ (তাহিরপুর-জামালগঞ্জ-ধর্মপাশা-মধ্যনগর) আসনে ঘরের আগুনে পুড়ছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের বিরুদ্ধে দলের ৭ মনোনয়ন প্রত্যাশী একাট্টা হয়েছেন। এরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে এমপির বিরুদ্ধে নালিশও করেছেন। হামলা-পাল্টাহামলা ও ভাংচুরসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগে তুলকালাম সব কান্ড ঘটে গেছে। শাসক দলের বর্তমান সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন এমপি রতনকে ছাড় দিতে নারাজ আওয়ালীগ’র একাধিক প্রার্থীরা অপরদিকে বিএনপিতে প্রার্থীজট রয়েছে। <br><br>নির্বাচন সামনে রেখে আওয়ামী লীগের অন্তত ১২ এবং বিএনপির অন্তত ৬ জন প্রার্থী সক্রিয়। সম্ভাব্য প্রার্থীরা শারদীয় দুর্গোৎসবের শুভেচ্ছা জানিয়ে পোস্টারে ছেয়ে ফেলেছেন এলাকা। তারা মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। তবে এলাকায় কোনো একক দলের প্রভাব নেই। গত ৬টি জাতীয় নির্বাচনে ৪ বার নৌকা ও দু’বার ধানের শীষ জয়ী হয়।<br>নব্বইয়ের পট পরিবর্তনের পর ১৯৯১ সালের নির্বাচনে ৭ দলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে নৌকা নিয়ে নির্বাচন করে বিজয়ী হন সিপিবির নজির হোসেন। শেষ দিকে দল বদল করে তিনি বিএনপিতে যোগ দেন এবং ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি একতরফা ভোটে ধানের শীষ নিয়ে বিজয়ী হন। তবে ১৯৯৬ সালের ১২ জুন নির্বাচনে জয়ী হন আ’লীগের অ্যাডভোকেট সৈয়দ রফিকুল হক সোহেল। ২০০১ সালের ভোটে ফের বিজয়ী হন বিএনপির নজির হোসেন। ২০০৮ সালের ভোটে ১ লাখ ৫৫ হাজার ২৫২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। তার নিকটতম প্রতিদ্বদ্বী জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. রফিক চৌধুরী ৯৪ হাজার ৪৫৮ ভোট পেয়ে পরাজিত হন। সবশেষে বিএনপিবিহীন ২০১৪ সালের নির্বাচনেও দলের বিদ্রোহী প্রার্থী সৈয়দ রফিকুল হক সোহেলকে হারিয়ে বিজয়ী হন মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। আগামী নির্বাচনেও তিনি দলের প্রার্থী।<br>নির্বাচন ঘনিয়ে আসায় আ’লীগের বিরোধ এখন প্রকাশ্যে। কয়েক মাস ধরেই দু’বারের এমপি রতনের বিরুদ্ধে একজোট হয়ে মাঠে সক্রিয় দলের অন্তত ৭ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী। কোন্দলের জেরে ধর্মপাশা জেলা আ’লীগ সহ-সভাপতির কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে বঙ্গবন্ধু এবং প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাংচুর, শিক্ষক লাঞ্ছনার ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন না করার অভিযোগ রয়েছে এমপির বিরুদ্ধে।<br>এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন ছাড়াও আ’লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হচ্ছেন- সাবেক এমপি সৈয়দ রফিকুল হক সোহেল, কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামীমা শাহরিয়ার, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট রনজিত সরকার, সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল করিম শামীম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট হায়দার চৌধুরী লিটন, সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও সুনামগঞ্জ চেম্বারের পরিচালক খন্দকার মনজুর আহমদ, আওয়ামী লীগের প্রয়াত এমপি আবদুল হেকিম চৌধুরীর ছেলে ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি রফিকুল হাসান চৌধুরী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য ও যুগ্ম সচিব (অব.) বিনয় ভূষণ তালুকদার ভানু, যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টা আওয়ামী যুবলীগ নেতা শক্তিপদ রায়, বঙ্গবন্ধু পরিষদ সুনামগঞ্জ জেলা শাখার আহ্বায়ক ড. রফিকুল ইসলাম তালুকদার, সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আক্তারুজ্জামান সেলিম।<br>মনোনয়ন প্রত্যাশীদের কয়েকজন দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সাধারণ সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে দেখা করে এমপির বিরুদ্ধে নানা বিষোদগার করেন। দলের প্রার্থী বদলের দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে ৭ মনোনয়ন প্রত্যাশী এক মঞ্চে সভা-সমাবেশ করছেন। তারা সরকারের উন্নয়ন কর্মসূচি তুলে ধরার সঙ্গে প্রকাশ্যে এমপির বিরুদ্ধে অনিয়ম ও র্দুর্নীতির নানা সব অভিযোগ করে বেড়াচ্ছেন।<br>মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন, মনোনয়ন চাওয়ার অধিকার সবার। কে পাবেন তা দলের সভানেত্রী ছাড়া আর কেউ বলতে পারবেন না। তিনি বলেন, এলাকায় গত ৪০ বছরে যে উন্নয়ন হয়নি গত ১০ বছরে তার কয়েকগুণ বেশি হয়েছে।<br>আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী রফিকুল হক সোহেল বলেন, দলীয় মনোনয়ন পেলে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে পারব।<br>অ্যাডভোকেট শামীমা শাহরিয়ার বলেন, ১৭ বছর ধরে আওয়ামী লীগের জন্য কাজ করছি। সুনামগঞ্জ-১ আসনের প্রতিটি উপজেলা, থানা ও ইউনিয়ন থেকে গ্রাম পর্যায়ে নেতাকর্মীদের পাশে ছিলাম ও আছি। ২০০৮ সালে মনোনয়ন চেয়েও পাইনি। এবার আশাবাদী। সেই টার্গেট নিয়ে মাঠপর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছি। অ্যাডভোকেট রনজিত সরকার বলেন, ‘আমাকে মনোনয়ন দেয়া হলে এলাকায় দলের মধ্যে কোনো গ্রুপিং-কোন্দল থাকবে না। ঐক্যবদ্ধ হয়ে দলের সব নেতাকর্মীদের নিয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করব।’ আওয়ামী লীগের আরেক প্রার্থী রেজাউল করিম শামীম বলেন, এমপি রতন গত ১০ বছরে এলাকায় জামায়াত-বিএনপি ও স্বাধীনতাবিরোধী পরিবারের লোকজনকে আওয়ামী লীগে পুনর্বাসিত করেছেন। তার পরিবারের লোকজন ও অনুসারীরা দুর্নীতি-লুটপাট করে আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্য করেছেন। নেতাকর্মীরা পরিবর্তন চান। আর এজন্য মনোনয়ন চাইব।<br>আরেক প্রার্থী খন্দকার মনজুর আহমদ দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশা করে বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা যাকে প্রার্থী দেবেন তার পক্ষেই মাঠে নামব।<br>আওয়ামী লীগের আরেক প্রার্থী রফিকুল হাসান বলেছেন, এমপি সাহেব বিএনপি ও জামায়াতের ব্যবসায়ীদের আওয়ামী লীগে পুনর্বাসিত করেছেন। জলমহাল-বালু-পাথরমহাল লুটপাটসহ নানা সেক্টরে দুর্নীতির মাধ্যমে কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা কামিয়েছেন। এমপির নির্দেশে তার অনুসারীরা ধর্মপাশা উপজেলা সদরে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতির কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে জাতির পিতা এবং প্রধানমন্ত্রীর ছবিও ভাংচুর করে। দু’জন শিক্ষককে লাঞ্ছিত করা হয়েছে। আগামী নির্বাচনে এ আসনে নতুন প্রার্থী দেয়ার দাবি জানাচ্ছি। <br>নানামুখী চাপ ও অনিশ্চয়তার মধ্যেও বিএনপিতে প্রার্থীর হিড়িক পড়ে গেছে। নির্বাচন সামনে রেখে এ মুহূর্তে অন্তত ছয়জন প্রার্থী মাঠে রয়েছেন। মনোনয়ন নিশ্চিত করতে তারা ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করা ছাড়াও লন্ডনের সঙ্গেও সংযোগ রাখছেন। বিএনপির এ মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হচ্ছেন- সাবেক এমপি নজির হোসেন, অধ্যাপক ডা. রফিক চৌধুরী, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও তাহিরপুর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান আনিসুল হক, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক তাহিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী ব্যারিস্টার হামিদুল হক আফিন্দি লিটন। এছাড়াও চারদলীয় জোটের শরিক ইসলামী ঐক্যজোটের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব ও সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা আশরাফ আলী জোটের মনোনয়ন প্রত্যাশী।<br>নজির হোসেন ও আরও দু’জন তরুণ নেতা লন্ডনে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে দেখা করে এসেছেন বলে বলাবলি হচ্ছে। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তাদের নির্বাচনী এলাকায় কাজ করে যাওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন বলে জানা গেছে।<br>জানতে চাইলে নজির হোসেন বলেন, দলীয় মনোনয়ন দিলে আমি ফের নির্বাচনে প্রতিদ্ব্িদ্বতা করব। অধ্যাপক ডা. রফিক চৌধুরী বলেন, ২০০৮ সালে ভোটে লড়ে প্রায় এক লাখ ভোট পেয়েছিলাম। আগামী নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেলে এ আসনে বিএনপির বিজয় নিশ্চিত। বিএনপির আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী আনিসুল হক বলেন, আমার বিশ্বাস দল নির্বাচনে গেলে অবশ্যই তৃণমূলের ত্যাগী নেতাকর্মীর প্রত্যাশা অনুযায়ী আমি মনোনয়ন পাব। তাহিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল বলেন, দল নির্বাচনে গেলে মনোনয়ন চাইব। তবে দল যাকে মনোনয়ন দেবে, আমি তার পক্ষেই মাঠে নামব। ইসলামী ঐক্যজোটের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা আশরাফ আলী বলেন, জোটগত নির্বাচন হলে ইসলামী ঐক্যজোট এ আসনটি দাবি করবে। জোটের প্রার্থী হিসেবে এ আসনে আমি নির্বাচন করব। তবে সব কিছু নির্ভর করছে জোটের শীর্ষ নেতাদের ওপর। </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><p class="alignfull"><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540030588_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">এই মুহূর্তে সংলাপের কোনও পরিবেশ ও প্রয়োজনীয়তা নেই বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন সচিব নভেম্বরের ফার্স্ট উইকে তফসিল ঘোষণার কথা বলেছেন। তাহলে এখন আর ১০-১২ দিনের মধ্যে কে কার সঙ্গে সংলাপ করবে? দেশে সংলাপ করার মতো এমন কোনও পরিবেশ নেই, প্রয়োজনীয়তা নেই।’ and nbsp; and nbsp;</p><div class="fb-quote fb_iframe_widget" style="position: absolute; left: 284px; top: 1084px;"><span style="vertical-align: bottom; width: 169px; height: 47px;"></span></div> <p class="alignfull">শনিবার (২০ অক্টোবর) আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলটির সম্পাদকমণ্ডলীর এক সভা শেষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেছেন ওবায়দুল কাদের।</p> <p class="alignfull">জনগণের মধ্যে বিরোধী জোটের কোনও গ্রহণযোগ্যতা নেই দাবি করে এসময় ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্ট গঠন করে তারা প্রথমেই বিদেশিদের কাছে গিয়েছে, দেশের জনগণের কাছে তো যায়নি। দেশের জনগণের কাছে তাদের গ্রহণযোগ্যতা নেই।’ and nbsp;</p> <p class="alignfull">জাতীয় পার্টির নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত জোট থেকে নির্বাচন নিয়ে শঙ্কার ব্যাপারে এইচ এম এরশাদের ঘোষণার প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এরশাদ সাহেব তো পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে বক্তব্য রাখতে পারেন। উনি সংসদে বিরোধী দলের আসনে আছেন, বিরোধী দলের পক্ষ থেকে যে কোনও বক্তব্য উনি দিতেই পারেন। উনি তো আর উনার পার্টিকে আওয়ামী লীগে দিয়ে দেননি। এরশাদ সাহেব আমাদের সঙ্গে জোটগতভাবে নির্বাচন করতে পারেন আবার নাও করতে পারেন। আগামী ১০-১২ দিনের মধ্যেই সব স্পষ্ট হয়ে যাবে।’ and nbsp;</p> <p class="alignfull">বিকল্পধারার ভাঙন এবং বিএনপি ভাঙতে পারে কিনা সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ভাঙনের প্রক্রিয়ায় আমাদের অংশ নেওয়ার কিছু নেই। অন্য দল যদি ভাঙে, তাহলে তারা নিজেরাই নিজেদের দল ভাঙবে। সেখানে আমাদের তো কোনও হাত নেই।’ and nbsp;</p> <p class="alignfull">সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সিলেটে মাজার জিয়ারত করতে তারা যেতে পারে। নির্বাচনের আগে সিলেটে মাজার জিয়ারত করার একটা ট্রেডিশন রয়েছে। কিন্তু মাজার জিয়ারতের নামে যদি কোনও নাশকতা, কোনও সহিংসতার পরিকল্পনা নিয়ে তারা সেখানে যান। তা থেকে উদ্ভূত পরিস্থিতি নির্ধারণ করে দেবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কী ধরণের পদক্ষেপ নেবে।’ and nbsp;</p> <p class="alignfull">কাদের বলেন, ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। যারা গত দশ বছরে আন্দোলন করতে পারে নাই, শুরুর আগেই যাদের দুই উইকেট পড়ে গেছে। আরও কত উইকেট পড়বে তা সময় বলে দেবে।’</p> সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মণি, জাহাঙ্গীর কবির নানক; সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম; and nbsp;দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুনন্নাহার লাইলী, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক শামসুনন্নাহার চাপা, তথ্য ও গবেষণ বিষয়ক সম্পাদক আফজাল হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আবদুস সবুর, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, আন্তর্জাতিক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমেদ, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমীন, উপ-দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় সদস্য আমিরুল ইসলাম মিলন, মারুফা আক্তার পপি প্রমুখ। </body></HTML> ...বিস্তারিত
<HTML><head></head><body style="font-family: SolaimanLipi; font-size: 16px"><p><img src="http://bdhotnews.com/2018/10/20/1540030501_th.jpg" alt="" style="margin-right: 7px;" border="0px" align="left">সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে ‘চরিত্রহীন’ বলায় ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের সংবাদ ৭ দিন বর্জনের আহ্বান জানিয়েছেন নারী সাংবাদিকরা। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ আহ্বান জানিয়েছেন নারী সাংবাদিকরা। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ১৬ অক্টোবর মধ্যরাতে একাত্তর টেলিভিশনের নিয়মিত আয়োজন একাত্তর জার্নালে রাজনৈতিক সংবাদের বিশ্লেষণ চলছিল। এ সময় ব্যারিস্টার মইনুলের কাছে মাসুদা ভাট্টির প্রশ্ন ছিল, ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি আলোচনা চলছে যে, সদ্য গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে জামায়াতের প্রতিনিধিত্ব আপনি করছেন কি না?’</p> <p>এর জবাবে ব্যারিস্টার মইনুল বলেন, ‘আপনার দুঃসাহসের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ দিচ্ছি। আপনি ‘চরিত্রহীন’ বলে আমি মনে করতে চাই।’<br></p><p>বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের এই বক্তব্য শুধু নারীর জন্য নয়, সকল নাগরিকের জন্য অবমাননাকর, আপত্তিকর ও চরম অসহনশীলতার পরিচায়ক। তার মতো যারা রাজনৈতিক সহনশীলতার কথা বলেন, তাদের কাছ থেকে এ ধরনের শব্দচয়ন উদ্বেগজনক এবং ভবিষ্যতে স্বাধীন সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যমের জন্য বিপজ্জনকও বটে।</p> <p>আমরা মনে করি যে, এই অবস্থায় ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন এই আপত্তিকর বক্তব্য দেওয়ায় এবং এখনো জনসম্মুখে ক্ষমা না চাওয়ায় তাকে সব ধরনের সংবাদ, অনুষ্ঠান এবং টক শো থেকে বয়কট করার জোর আহ্বান জানাচ্ছি। আমাদের সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা ও সম্মান রক্ষার্থেই এই দাবি সংগত বলেও আমরা মনে করি।</p> <p>সুতরাং, এই বক্তব্য প্রত্যাহারপূর্বক তার কাছ থেকে একটি প্রকাশ্য মার্জনা প্রার্থনা দাবি করা হচ্ছে দেশের সকল সচেতন নাগরিকের পক্ষ থেকে। কিন্তু এখনো ব্যারিস্টার মইনুলের কাছ থেকে সেরকম কোনো পদক্ষেপ লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। উপরন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নারী সাংবাদিকদের প্রতি চরম অবমাননাকর প্রচারণা শুরু হয়েছে। বিশেষ করে মাসুদা ভাট্টিকে লক্ষ্য করে চালানো অপপ্রচার সকল সীমা অতিক্রম করছে। এমতাবস্থায়, তার নিরাপত্তা সংকটও তৈরি হয়েছে।</p> </body></HTML> ...বিস্তারিত